প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চামড়ার বাজারে ধস : ক্ষুদ্ধ আলেম সমাজ

ডেস্ক রিপোর্ট: চামড়াজাত পণ্যের দাম বাড়লেও প্রতিবছরই কমছে কোরবানির পশুর চামড়ার দাম। ব্যবসায়ীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিবছর কোরাবনির ঈদের আগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় চামড়া দাম কমিয়ে পুনর্র্নিধারণ করে দেয়। আর এভাবেই গত সাত বছরে বছরে গরুর চামড়ার দাম কমে অর্ধেকের নিচে ও খাসি চারভাগের একভাগে নেমেছে।

সবমিলিয়ে চামড়ার বাজারে ধস নেমেছে। একেবারে পানির দরে বিক্রি হয়েছে করবানির পশুর চামড়া। প্রকারভেদে প্রতিটি গরুর চামড়া ১০০ থেকে ৪০০ টাকা ও ছাগলের চামড়া ১০ টাকায় কেনা হয়েছে। তবে বড় গরুর চামড়া সর্বোচ্চ ৫০০ টাকায় নেয়া হয়। মূল্য কম হওয়ায় অনেক কোরবানিদাতা চামড়া বিক্রি না করে মাদরাসাসহ বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দান করেছেন। তবে পশুর চামড়ার দাম কম হওয়ার দুস্থরা বঞ্চিত হয়েছেন। এতে দেশের আলেম সমাজ ক্ষোভ ও হতাশা প্রকাশ করেছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর কাঁচা চামড়ার মূল্য ছিল ৮৫ থেকে ৯০ টাকা। ওই সময়ে লবণযুক্ত ছাগলের চামড়ার বিক্রি হয়েছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকায়। মাত্র সাত বছরের ব্যবধানে ২০২০ সালে লবণযুক্ত প্রতিবর্গফুট গরুর কাঁচা চামড়ার দাম মাত্র ৩৫ থেকে ৪০ টাকায় এবং প্রতি বর্গফুট ছাগলের চামড়ার ১৩ থেকে ১৫ টাকায় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। গত সাত বছরে গরুর চামড়া দাম কমেছে ৫৮ দশমিক ৮২ শতাংশ। একই সময়ে ছাগলের চামড়ার দাম কমেছে ৭৪ শতাংশ। অর্থাৎ ২০১৩ সালে ছাগলের চামড়া যে দামে পাওয়া যেত, ২০২০ সালে এসে গরুর চামড়া তার চেয়েও কম দামে পাওয়া যাচ্ছে।

সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর কাঁচা চামড়ার দাম ছিল ৮৫ থেকে ৯০ টাকা এবং ছাগলের চামড়া ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। ২০১৪ সালে কমিয়ে গরুর চামড়া ৭০ থেকে ৭৫ টাকা এবং ছাগলের চামড়া ৪০ থেকে ৪৫ টাকা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। অন্যদিকে ২০১৫ ও ২০১৬ সালে পরপর দুই বছর প্রতি বর্গফুট গরুর কাঁচা চামড়া ৫০ থেকে ৫৫ টাকা এবং ছাগলের চামড়া ২০ থেকে ২৫ টাকায় নির্ধারণ করে দেওয়া ছিল। তবে ২০১৭, ২০১৮ ও ২০১৯ সালে টানা তিনবছর প্রতি বর্গফুট গরু চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করা হয় ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। তবে ২০১৭ সালে ছাগলের প্রতিবর্গফুট চামড়া ২০ থেকে ২২ টাকায় নির্ধারণ করা হলেও ২০১৮ ও ২০১৯ সালে তা আরও কমিয়ে ১৮ থেকে ২০ টাকা করা হয়। সর্বশেষ গত ২৬ জুলাই ২০২০ সালের কোরবানি ঈদের জন্য প্রতিবর্গফুট গরুর চামড়া ৩৫ থেকে ৪০ টাকা এবং ছাগলের ১৩ থেকে ১৫ টাকা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীতে বেলা ১১টার পর থেকে চামড়া কেনাবেচা শুরু হয়। গরুর চামড়া ১০০ টাকা (গাভী) থেকে ৪০০ টাকায় (ষাঁড়) বিক্রি হয়। তবে বড় সাইজের গরুর চামড়া (২৫-৩০ বর্গফুট) ৫০০ থেকে ৫৫০টাকায় কেনা হয়েছে। ছাগলের চামড়া বিক্রি হয়েছে, ১০ টাকা থেকে ১৫ টাকায়। ভেড়ার চামড়ার দাম দেয়া হয়নি। বিক্রেতারা গরু বা ছাগলের চামড়ার সঙ্গে ফ্রি দিয়ে গেছেন।

রাজধানীর মগবাজারের ওয়্যারলেস এলাকার ট্রপিকেল হাউজিংয়ের ২৮টি আবাসিক ফ্লাটের বাসিন্দারা গত বছরের ইদুল আজহাতে ১৬টি গরু ও ৪টি ছাগল কোরবানি দিয়েছিলেন। এবার সেখানে মাত্র ৬টি গরু ও ২টি ছাগল কোরবানি দেওয়া হয়েছে। ট্রপিকেল হাউজিংয়ের বাসিন্দা আইনজীবী সগীর হোসেন বলেন, করোনার কারণে এখানকার বেশিরভাগ বাসিন্দা যৌথভাবে কোরবানির আয়োজন করেছিলেন। তিনি বলেন, করোনার কারণে অনেকের আয় কমেছে। আবার অনেকের চাকরি ও ব্যবসা নেই। ফলে এই আবাসিক ভবনে কোরবানির এই অবস্থা।

আদাবরের বায়তুল আমান হাউজিং সোসাইটির একজন বাসিন্দা জানান, গত বছর তাদের আবাসিক ভবনে ৬-৭টি পশু কোরবানি হয়েছিল। এবার সেখানে ৩টি কোরবানি হয়েছে।
যাত্রাবাড়ী এলাকার একাধিক মাদরাসা ও এতিম খানা কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এবার বহু মানুষ কোরবানির চামড়া মাদরাসা ও এতিমখানায় দান করেছেন। কিন্তু সেই সব চাড়মা মোকামে নিয়ে তারা বিক্রি করেছেন পানির দরে। ঈদের দিন দুপুরের পর থেকে পোস্তায় গিয়ে চামড়া নিয়ে অপেক্ষা করতে হয়েছে ঘণ্টার পর ঘণ্টা। উপায় না দেখে শেষ পর্যন্ত পানির দরেই চামড়া বিক্রি করতে হয়েছে।
দনিয়া এলাকার এক মাদরাসা সুপারিনটেনডেন্ট ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, চামড়া ব্যবসায়িরা তো ঠিকই লাভ করবেন। মাঝখান থেকে আমরা ঠকলাম। বঞ্চিত হলার ন্যায্য দাম থেকে। এ নিয়ে আলেম সমাজ ক্ষুদ্ধ ও হতাশ বলে তিনি উল্লেখ করেন।

রাজধানীর অধিকাংশ এলাকায় একই চিত্র লক্ষ্য করা গেছে এবারের কোরবানিতে। রাজধানীর চামড়ার ফড়িয়া ব্যবসায়ীরা বলেছেন, গতবারের চেয়ে এবার অর্ধেকরও কম পরিমাণ চামড়া তারা সংগ্রহ করছেন বেপারিদের কাছে বিক্রির জন্য। বেগুনবাড়ি এলাকার মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ী মফিজুল ইসলাম পিন্টু ও সাইফুদ্দিন। গত বছর তারা দুইজনে প্রায় এক হাজার গরুর চামড়া সংগ্রহ করেছিলেন। এবার মাত্র ৪০০টি চামড়া সংগ্রহ করেছে।

বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব টিপু সুলতান বলেন, সারাদেশে গতবারের তুলনায় অর্ধেক কম পরিমাণ চামড়া কেনার লক্ষ্য রয়েছে চামড়া ব্যবসায়ীদের। যেকারণে চামড়ার দাম এবার কম। গত বছর যে চামড়া কেনা হয়েছিলো দিয়েই কাজ এবার কাজ করেত চাই।
এদিকে কোরবানির গরু-ছাগলের চামড়ার কেনাবেচা নিয়ে বিক্রেতা ফরিয়া ও বেপারি, তিনপক্ষই অসন্তুষ্ট। বিক্রেতারা বলছেন, সরকারের নির্ধারিত মূল্য পাচ্ছেন না তারা। ফরিয়ারা বলছেন, যে দামে বিভিন্ন মহল্লা থেকে চামড়া কিনেছে, সেই দামে বেপারিদের কাছে বিক্রি করতে পারছেন না।

আর বেপারিরা বলছেন, যে দামে চামড়া কেনার কথা সে দামে পাচ্ছেন না তারা। চামড়ার বাজারের এই অবস্থার কারণে অনেকেই তাদের পশুর চামড়া বিভিন্ন এতিমখানা ও লিল্লাহ বোর্ডিংকে বিনামূল্যে দিয়ে দিয়েছেন। এর বাইরে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পশু কোরবানির যে সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে তাতেও উপরের কারণগুলোই স্পষ্ট। করোনা আর ট্যানারি মালিকদের কাছে চামড়া ব্যবসায়ীদের বড় অঙ্কের বকেয়া।ইনকিলাব

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত