প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শিল্পী সমিতির বঞ্চিত ১৮৪ জনের ভরসা এখন চলচ্চিত্র পরিবার

ইমরুল শাহেদ : মিশা-জায়েদ বনাম চলচ্চিত্রের মধ্যে জায়েদ খানকে বয়কট করার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে তা এখনো অব্যাহত আছে। চলচ্চিত্র পরিবার জায়েদ খানকে বয়কটের ক্ষেত্রে যে অবস্থান নিয়েছে, তারা তাতে অনড় রয়েছেন। গত বৈঠকে চলচ্চিত্র পরিবার থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে- শিল্পী সমিতি যে ১৮৪ জন সদস্যের সদস্যপদ স্থগিত করেছে বা বাদ দিয়েছে তা অবিলম্বে ফিরিয়ে দিতে হবে এবং মিশা সওদাগর ও জায়েদ খানকে যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে পদত্যাগ করতে হবে।

প্রযোজক পরিবেশক সমিতি থেকে বলা হয়েছে, তারা শিল্পী সমিতির বিরুদ্ধে নন। তারা মিশা-জায়েদের কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে। চলচ্চিত্র শিল্পের স্বার্থ বিরোধী ভূমিকা পালনের জন্য প্রযোজক পরিবেশক সমিতি জায়েদ খানকে কারণ দর্শানোর যে নোটিশ দিয়েছিল তার জবাব দিয়েছেন তিনি। সমিতির একজন কর্মকর্তা জানান, জায়েদ খানের জবাব সন্তোষজনক নয়।

ইতোমধ্যে শিল্পী সমিতির ভোটাধিকার বঞ্চিত ১৮৪ জন সদস্য তাদের অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য কাগজপত্র জমা দিতে শুরু করেছেন প্রযোজক পরিবেশক সমিতিতে। নির্বাচনের সময় মিশা-জায়েদ প্রতিশ্রæতি দিয়েছিলেন, তারা নির্বাচিত হলে নির্বাচনের এক মাসের মধ্যে সকলের সদস্যপদ ফিরিয়ে দেবেন। কিন্তু নির্বাচনের পর দীর্ঘ সময় পার হয়ে গেলেও তাদের সদস্যপদ ফিরিয়ে দেওয়া হয়নি।

নগর মাস্তান ছবির প্রধান খলনায়ক জামাল পাটোয়ারী জানান, শিল্পী সমিতি থেকে সদস্যপদ ফিরিয়ে দেওয়ার কথা বলে শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকেও গোপনে যোগাযোগ করা হচ্ছে। কিন্তু মিশা ও জায়েদ খানের প্রতিশ্রæতির ওপর তাদের কোনো আস্থা নেই বলে তিনি উল্লেখ করেন। রোববার সকল সংগঠনের অফিস খোলা ছিল। তাই দিনটিতে এফডিসি চত্বর ছিল জমজমাট।

সদস্যপদ হারানো শিল্পীদের অনেকেই এদিন এফডিসিতে আসেন। অন্যদিকে নৃত্য পরিচালক সমিতির সভাপতি আজিজ রেজা ও সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুল হক খোকন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, সাংগাঠনিক সম্পাদক সাইফ খান কালুর নির্বাহী পরিষদের সদস্যপদ এবং সাধারণ সদস্যপদ দুই বছরের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। তিনি অন্যায়ভাবে বিবাদে জড়িয়েছেন নৃত্যপরিচালক সাইফুল ইসলামের সঙ্গে।

সর্বাধিক পঠিত