প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মুখে বাণিজ্যযুদ্ধের কথা বললেও গোপনে নিজের প্রতিষ্ঠানের জন্য চীনের ৮ টন পণ্য আমদানি করেছেন ট্রাম্প

লিহান লিমা: [২] মার্কিন কাস্টমসের ডেটা পর্যালোচনা করে সিএনএন দেখেছে, গত বছরের সেপ্টেম্বরে নিউইয়র্কের ট্রাম্প ইন্টারন্যাশনাল হোটেলের জন্য চীন থেকে ৬টনেরও বেশি টেবিল আনা হয়েছিলো। ওই একই দিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প টুইট করেন, ‘আমার চীনের সঙ্গে খুব ভালোভাবে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি।’

[৩] দুই মাস আগে লস অ্যাঞ্জেলসের ট্রাম্প ন্যাশনাল গলফ ক্লাবের জন্য সাংহাই থেকে ২ টন কাঠের ও গ্লাসের শোকেস ক্যাবিনেট আমদানি করা হয়েছিলো। লস অ্যাঞ্জেলসে এই ক্যাবিনেটগুলো আসার দুই দিন পর এক টুইটে ট্রাম্প চীনের ওপর মহামারী সামলাতে অক্ষমতা এবং বিশ্বজুড়ে গণহত্যা চালানোর অভিযোগ আনেন।

[৪] ট্রাম্প বলেছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর তিনি তার ব্যবসায়ের দায়ভার তার ছেলের হাতে অর্পণ করেছেন কিন্তু যে সংস্থাগুলোতে তার অংশীদার রয়েছে তার নিয়ন্ত্রণ সম্পূর্ণভাবে ছেড়ে দেন নি তিনি। এটি অস্পষ্ট ব্যবসায়ে তার কি ভূমিকা রয়েছে ও কতটুকু রয়েছে।

[৫] সিএনএন বলছে, ট্রাম্পের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য আমদানিকৃত পণ্য তার নির্বাচনী অর্থনৈতিক জাতীয়তাবাদী স্লোগান ‘মেক আমেরিকা গ্রেট অ্যাগেইন’ এবং তার নিজ প্রশাসনের জারি করা চীনের সঙ্গে যে কোনো ব্যবসা নিয়ে সতর্কবার্তার সম্পূর্ণ বিপরীত।

[৬] ২০১৭ সালের এপ্রিলে ট্রাম্প এক নির্বাহী আদেশে ফেডারেল সংস্থাগুলোকে মার্কিন পণ্য কেনার নির্দেশ দেন। এ বছরের জুলাইতে ট্রাম্প মার্কিন পণ্য উৎপাদন এবং ক্রয় সর্বোচ্চ বাড়ানোর নির্দেশ দেন। ট্রাম্পের অ্যাটর্নী জেনারেল উইলিয়াম ব্লার গত সপ্তাহে হলিউড ও সিলিকন ভ্যালির ওপর চীনে মুগ্ধতার অভিযোগ এনেছিলেন। সেই সঙ্গে তিনি মার্কিন ব্যবসায়ীদের চীনের সঙ্গে কোনো ধরণের সম্পৃক্ততা নিয়েও সতর্ক করেন।

[৭] হোয়াইট হাউস এবং ট্রাম্প অর্গানাইজেশন এ বিষয়ে সিএনএন যোগাযোগ করলেও কোনো মন্তব্য করে নি। সম্পাদনা: ইকবাল খান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত