প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

হাসান শান্তনু : ব্রাহ্মণবাড়িয়া কি এখন ধর্মান্ধদের দখলে?

হাসান শান্তনু : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাম্প্রদায়িকতার শিকার মাত্র দুইদিন বয়সের এক মৃত শিশু। শিশুটির বাবা-মা ধর্ম বিশ্বাসের নিরিখে আহমদিয়া মুসলমান। এ ‘অপরাধে’ ওর মরদেহ কবর থেকে তুলে রাস্তায় ফেলে রাখে ইসলামি ধর্মান্ধরা। গত বৃহস্পতিবার সকালে সদর উপজেলার ঘাটুরা গ্রামে পৈশাচিক এ ঘটনা ঘটে। ‘শান্তির ধর্মের অনুসারীরা’ একটা মৃত শিশুর সঙ্গে ভয়ঙ্কর আচরণ করে শান্তির আরেক নমুনা প্রতিষ্ঠিত করলো। বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে শিশুটি মারা যায়। ধর্মীয় রীতি মেনে সকাল ৭টার দিকে মরদেহ ঘাটুরা এলাকার সরকারি কবরস্থানে দাফন করা হয়। আহমদিয়া মুসলমান হওয়ায় দাফনের ঘণ্টা দেড়েক পর মাইকে প্রচার করে মরদেহ কবর থেকে তোলার জন্য স্থানীয় ধর্মান্ধ, জঙ্গিমনস্কদের জড়ো করে মৌলভিরা। এরপর মরদেহ কবর থেকে তুলে কবরস্থানের সীমানাপ্রাচীরের বাইরে রাস্তায় ফেলে রাখে তারা।

দুইদিনের শিশু মৃত্যুর পর ওর মরদেহও যে ধর্মীয় তাণ্ডবের শিকার হতে পারে, এ দৃষ্টান্ত পৃথিবীতে প্রতিষ্ঠিত করলো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বর্বরেরা। পরে পুলিশি পাহারায় ওইদিনই বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের কান্দিপাড়া এলাকায় আহমদিয়া সম্প্রদায়ের নিজস্ব কবরস্থানে শিশুটির মরদেহ দাফন করা হয়। ঘাটুরার ওই সরকারি কবরস্থানে এতোদিন আহমদিয়া, সুন্নি, ওহাবি মুসলমানের মরদেহ কবরস্থ হতো। এখন কী ওই কবরস্থান শুধু জঙ্গি মনস্কদের দখলে? ফুলের মতো নিষ্পাপ একটা শিশুর মরদেহ নিয়ে সাম্প্রদায়িকতা ছড়ানো, মৌলভিদের মাইকে প্রচারণা, জিহাদের জোশে কবরস্থানে জড়ো হওয়া, মরদেহ কবর থেকে তুলে রাস্তায় ফেলে রাখা- এতোসব জঘন্যতম কাণ্ডকালে স্থানীয় প্রশাসন কী করছিলো? ব্রাহ্মণবাড়িয়া কী এখন পুরোপুরি ধর্মান্ধদের দখলে? ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত