প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] প্রতিদ্বন্দ্বী নয় সহযোগী’, নয়াদিল্লিকে বার্তা চীনা রাষ্ট্রদূতের

বাশার নূরু : [২] চীনা রাষ্ট্রদূতের দাবি, সীমান্তে বিরোধের ছায়া দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও আর্থিক লেনদেনের উপর পড়লে তার পরিণাম দু’দেশের পক্ষেই খারাপ হবে। ক্ষতিগ্রস্ত হবে উন্নয়ন।

[৩] শুক্রবার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে সুস্থিতির বার্তা দিয়ে ভারতে নিযুক্ত চিনা রাষ্ট্রদূত সুন ওয়েডং বলেন,, ‘‘চীন ও ভারত পরস্পরের প্রতিদ্বন্দ্বী নয়, সহযোগী।’’

[৪] নয়াদিল্লির চীনা দূতাবাসের তরফে ইউটিউবে পোস্ট করা ভিডিও বার্তায় সুন বলেন, সীমান্ত সমস্যার স্থায়ী যুক্তিগ্রাহ্য সমাধান না হওয়া পর্যন্ত শান্তি ও সুস্থিতি বজায় রাখা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে সঙ্ঘাত এড়িয়ে ধারাবাহিক আলোচনার মাধ্যমেই চিন এবং ভারতকে এগোতে হবে।’

[৫] চীনের রাষ্ট্রদূত সীমান্ত সমস্যার সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও আর্থিক সহযোগিতার বিষয়টিকে পৃথক করারও অাহ্বান জানান।। তার দাবি, সীমান্তে বিরোধের ছায়া দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও আর্থিক লেনদেনের উপর পড়লে তার পরিণাম দু’দেশের পক্ষেই খারাপ হবে। ক্ষতিগ্রস্ত হবে উন্নয়ন।

[৬]সুন বলেন, ‘‘মেড ইন চায়না পণ্যে শুল্ক বহির্ভূত প্রতিবদ্ধকতা এবং বিধিনিষেধ আরোপ সঠিক না। এ ক্ষেত্রে চীনা উৎপাদক এবং ভারতীয় উপভোক্তা, দু’পক্ষই ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।’’ লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় চীনা ফৌজের হামলায় ২০ জন ভারতীয় সেনার মৃত্যুর পরে চীনের টেলিকম ও বিদ্যুৎ সরঞ্জাম আমদানিতে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে ভারত। নিষিদ্ধ করা হয়েছে টিকটক-সহ ৫৯টি চিনা অ্যাপ। এই প্রেক্ষিতে সুনের এদিনের মন্তব্যেকে ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ বলে মনে করা হচ্ছে।

[৭] ১৮ মিনিটের ওই ভিডিয়ো বার্তায় পারস্পরিক আস্থা এবং বিশ্বাস ফিরিয়ে আনারও অাহবান জানিয়েছেন চীনা রাষ্ট্রদূত। তিনিন বলেন, পরস্পরকে সম্মান দেওয়া এবং মূল স্বার্থগুলির প্রতি নজর দিলেই ভারত-চীন সম্পর্কে নতুন মাত্রা আসবে। সূত্র: অানন্দবাজার।

সর্বাধিক পঠিত