প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় বিক্ষোভ, নিজেরাই মানলেন না স্বাস্থ্যবিধি

এএইচ রাফি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : [২] করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে ত্রি-হুইলার সিএনজি চালিত অটোরিকশায় সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে যাত্রী পরিবহণ করায় বিক্ষোভ করেছে গণপরিবহণ মালিক ও শ্রমিকরা। বুধবার (১ জুলাই) সকালে প্রায় ঘন্টা ব্যাপী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল-বিশ্বরোড় মোড়ে এ কর্মসূচি পালন করেন তারা। এসময় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন চলাচল বন্ধেরও দাবি জানান মালিক-শ্রমিক নেতারা।

[৩] কিন্তু এই বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পরিবহণ মালিক ও শ্রমিকদেরকেই সামাজিক দূরত্ব না মেনে স্বাস্থ্য বিধি উপেক্ষা করতে দেখা গেছে। এই করোনা ভাইরাসের পাদুর্ভাবের মধ্যেও সরকারি নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে মহাসড়কে জনসমাগম করে মিছিল ও বিক্ষোভ করেছেন তারা।

[৪] এসময় অবরোধের ফলে ঢাকা-সিলেট মহসাড়কে প্রায় আধা ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। এতে করে তীব্র যানজট তৈরি হয়।

[৫] সকালে জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হানিফ ও লোকাল বাস পরিচালনা কমিটির সম্পাদক নিয়ামত খানের নেতৃত্বে সরাইল-বিশ্বরোড গোলচত্বর থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিল থেকে মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন চলাচল বন্ধের দাবি জানিয়ে হাইওয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে শ্লোগান দেওয়া হয়। পরে বিক্ষোভকারীরা মহাসড়কে অবরোধ সৃষ্টি করে। পরবর্তীতে হাইওয়ে পুলিশকে সাতদিনের আল্টিমেটাম দিয়ে অবরোধ প্রত্যাহার করে নেওয়া হলেও বেলা ১২টায় মহাসড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

[৬] জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হানিফ বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের কথা থাকলেও সিএনজি চালিত অটোরিকশাগুলো সেই নির্দেশনা মানছে না। এছাড়াও উচ্চ আদালত থেকে মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু হাইওয়ে পুলিশকে ম্যানেজ করে অবাধে তিন চাকার যানবাহন মহাসড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। এতে করে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। তাই মহাসড়কের তিন চাকার যানবাহন চলাচল বন্ধে আমারা সাতদিনের আল্টিমেটাম দিয়েছি। এর মধ্যে আমাদের দাবি না মানা হলে আরও কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

[৭] ত্রি-হুইলারের স্বাস্থ্যবিধি না মানার বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পরিবহণ মালিক-শ্রমিকরা স্বাস্থ্যবিধি নিজেরাই মানেনি কেন? এই বিষয়ে পরিবহন মালিক নেতা হানিফ বলেন, আমাদের মাস্ক ছিল। হয়তো তাৎক্ষণিক কর্মসূচি হওয়ায় বিষয়টি কেউ লক্ষ্য করেনি।

[৮] ব্রাহ্মণবাড়িয়া পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান চৌধুরী জানান, একটি সিএনজি চালিত অটোরিক্সায় ৫জন করে যাত্রী নেয়।স্বাস্থ্য বিধি মানছে না কেউ।কিন্তু আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাস চালনা করছি। হাইওয়েতে থ্রি হুইলার বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশনা থাকা সত্বেও অবাধে চলাচল করছে।তাই আমরা কঠোর আন্দোলনের দিকে যাচ্ছি।

[৯] খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম মনিরুজ্জামন জানান, মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশে আমরা মহাসড়কে ত্রি-হুইলার বন্ধে চেষ্টা করে যাচ্ছি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত