প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কোভিড-১৯ থেকে “বাঁচার” পথ দেখালেন কাবার ইমাম শায়খ সুদাইসি

অনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বর্তমানে বিশ্বব্যাপী এক মহা আতঙ্কের নাম। এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে মানুষ দিশেহারা প্রায়। কাবা শরিফ ও মসজিদে নববির প্রধান ইমাম শায়খ সুদাইসি এ ভাইরাসে আতঙ্কিত না হয়ে ধৈর্য ও আল্লাহর সাহায্য লাভের শরয়ী দিকনির্দেশনা দিয়েছেন।

মক্কার মসজিদে হারামের সাপ্তাহিক ধর্মীয় বয়ানে করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে তিনি মুসলিম উম্মাহর প্রতি নসিহত পেশ করতে গিয়ে কুরআনের একাধিক উদ্ধৃতি তুলে ধরেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-

– অবশ্যই আমি তোমাদের পরীক্ষা করব কিছুটা ভয়, ক্ষুধা, মাল ও জানের ক্ষতি এবং ফল-ফসল বিনষ্টের মাধ্যমে। তবে ধৈর্যধারণকারীদের জন্য রয়েছে সুসংবাদ।’ (সুরা বাকারা : আয়াত ১৫৫)

– (হে নবি!) আপনি বলুন, আমাদের কাছে কিছুই পৌঁছবে না। কিন্তু যা আল্লাহ আমাদের জন্য রেখেছেন; তিনি আমাদের কার্যনির্বাহক। আল্লাহর ওপরই মুমিনদের ভরসা করা উচিত।’ (সুরা তাওবা : আয়াত ৫১)

অতঃপর তিনি বলেন, ‘আল্লাহ তাআলা মানুষকে নানা মুসিবত দিয়ে বিভিন্নভাবে পরীক্ষা করেন। এটি আল্লাহর প্রতি বিশ্বাসের বিপরীত কিছু নয়। একজন মুসলিম সব সময় আল্লাহর সিদ্ধান্ত এবং ফয়সালার প্রতি ঈমান রাখে।

তিনি বলেন, ভয়াবহ এ করোনাভাইরাসে অধিকাংশ মানুষ ৩ ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। তাদের অবস্থা এমন-

– একটি পক্ষ করোনাভাইরাস থেকে সতর্কতায় অসংখ্য পরিকল্পনা করে ঠিকই কিন্তু আল্লাহর ওপর ভরসা করে না। এটি মানুষের বাড়াবাড়ি।

– একটি পক্ষ কোনো পদক্ষেপ বা পরিকল্পনা গ্রহণ করে না, শুধু আল্লাহর ওপর ভরসা করে বসে থাকে। এটি একেবারেই ছাড়াছাড়ি। বাস্তবে এটি সুন্নাহবিরোধী কাজও বটে।

– একটি পক্ষমধ্যম পন্থা অবলম্বন করে। তাদের বৈশিষ্ট্য হলো-
‘তারা আল্লাহর ওপর পরিপূর্ণ আস্থা এবং বিশ্বাস রাখে। পাশাপাশি করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষার নিমিত্তে পূর্ণ সতর্কতা নিয়ে নানা উপায়ও অবলম্বন করে।’- এ ব্যাধিটি যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সে বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বনে সৌদি সরকার পরিচালিত নীতিও এটি।

শায়খ সুদাইসি মধ্যমপন্থা নীতির অবলম্বনে এবং করোনা ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহুর বর্ণিত একটি হাদিস তুলে ধরেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-

যদি তোমরা মহামারির (নতুন নতুন রোগ-ব্যাধির) কোনো সংবাদ শোন, তো সেখানে (আক্রান্ত অঞ্চলে) তোমরা প্রবেশ থেকে বিরত থাক। আর যদি কোনো শহরে বা নগরে কেউ সে মহামারিতে আক্রান্ত হয়, তো সেখান থেকে তোমরা বের হয়ে (অন্য কোনো অঞ্চলে) যেয়ো না।’ (বুখারি)

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের এ হাদিসটি বর্ণনার মূল উদ্দেশ্য ছিল যাতে সংক্রামক কোনো ব্যাধি ছড়িয়ে না পড়ে, সেদিকে লক্ষ্য রাখা এবং সতর্কতা অবলম্বন করা। এক ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তির মাঝে যেন সংক্রামক এ ব্যাধি না ছড়িয়ে পড়ে সেদিকেও সতর্ক থাকা।

সুত্র : বিডিপ্রেস এজেন্সি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত