প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সাবেক গর্ভনরদের দাস ব্যবসায় জড়িত থাকার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের, সরালো ১১ গর্ভনরের ছবি

লিহান লিমা:[২] থ্রেডনিডেল স্ট্রেট হেডকোয়ার্টার ওই ঘোষণা দিয়েছে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড। ডেইলি মেইল।

[৩] লন্ডন ইউনিভার্সিটি কলেজের তথ্যমতে, সরকারের ব্যাংক হিসেবে ১৬৯৪ সালে যাত্রা শুরু করে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড। এটি সরাসরি দাস ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িত না থাকলেও এই ব্যাংকের কমপক্ষে ২৫ জন গর্ভনর ও ডিরেক্টর ১৮’শ এবং ১৯’শ শতকে দাস ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

[৪] দ্য গার্ডিয়ানকে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের মুখপাত্র বলেছেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, ১৮শ এবং ১৯শ শতকের দাস বাণিজ্য ইংলিশদের ইতিহাসের এক অগ্রহণযোগ্য অংশ। একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড কখনোই সরাসরি দাস বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত ছিলো না। কিন্তু এটি জানতো যে এর সঙ্গে এই প্রতিষ্ঠানের সাবেক গর্ভনর ও পরিচালকদের সম্পৃক্ততা ছিলো এবং তার জন্য এই ব্যাংক ক্ষমা প্রার্থনা করছে।

[৫] গত ২৫ মে যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশি নির্যাতনে কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েড খুন হওয়ার পর বিশ্বজুড়ে প্রতিবাদ দানা বাঁধে। ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ বিক্ষোভের মুখে বিশ্বের প্রধান প্রধান কোম্পানি ও প্রতিষ্ঠানগুলো দাস ব্যবসার জড়ানো ইতিহাস নিয়ে নিজেদের পর্যালোচনা করছে। দ্য গার্ডিয়ান। সম্পাদনা: ইকবাল খান

সর্বাধিক পঠিত