প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] শেরপুরে মহিলা প্রতিবন্ধি খুনের ঘটনায় ২ সাপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও গ্রেফতার হয়নি কেউ

তপু সরকার : [২] জেলার সদর উপজেলার চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের দিকপাড়া গ্রামের হুমায়ুন কবীরের মানসিক প্রতিবন্ধী কন্যা তাসফিয়া হুমায়রা হৃদয়কে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তারই চাচা-জেঠা ও ভাইয়েরা নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া। হত্যা ঘটনার দুই সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি। এতে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ।

[৩] শেরপুর সদর উপজেলার চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের দিকপাড়া গ্রামের অবসর প্রাপ্ত নৌবাহিনীর সদস্য হুমায়ুন কবীরের মানসিক প্রতিবন্ধী কন্যা তাসফিয়া হুমায়রা হৃদয়।

[৪] হৃদয়কে বিয়ে দেয়ার পর থেকেই হৃদয় স্বামীকে নিয়ে বাবার গ্রামের বাড়ীতে বসবাস করে আসছিল। আর বাবা হুমায়ুন কবীর পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে জামালপুর শহরে বসবাস করে আসছে। হুমায়ুনের সাথে জমিজমা নিয়ে তার ভাইদের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে ১৪ মে বর্গা জমির ধানের আটি বন্টন নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে হুমায়ুনের বড়ভাই হাশেমের নির্দেশে তার ভাতিজা রনিসহ অন্যরা বেধরকভাবে পেটাতে থাকে প্রতিবন্ধী হৃদয়কে। এতে সে গুরুতরভাবে আহত হয়।

[৩] আহত হৃদয়কে প্রথমে জামালপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হলে করোনার কারণে তাকে চিকিৎসা দিয়ে বাসায় পাঠিয়ে দেয়া হয়। পরে ধীরে ধীরে তার শারিরিক অবস্থার অবনতি হলে ২৩ মে আবার তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখান থেকে তাকে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করারপর তলপেটসহ বিভিন্নস্থানে আঘাতজনিত গভীর ক্ষত থাকায় ময়মসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে।

[৪] কিন্তু হাসপাতালে নেয়ার পথেই ২৪ মে হৃদয় মারা যায়। এঘটনার পর এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। এ নির্মমঘটনার পর এলাকাবাসী দাবী করে আসছে দায়ী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির।

[৫] পুলিশ তাৎক্ষণিক হত্যা মামলা গ্রহণ করে। কিন্তু এখনও আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে হৃদয়ের পরিবারের সদস্যরা। আসামীরা মামলা তুলে নিতেও হুমকি দিচ্ছে।

[৬] আসামি পক্ষের স্বজনরাও এঘটনার সত্যতা শিকার করে বলেছেন, যাদের আসামি করা হয়েছে তাদের মধ্যে দু একজন জড়িত ছিলনা।

[৭] এদিকে পুলিশের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপারমো: আমিনুল ইসলাম জানান, তারা এ হত্যাকান্ডের জন্য যারা দায়ী তাদেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা করছে। দ্রুতই তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে। একজন প্রতিবন্ধীকে হত্যার ঘটনায় জেলার সচেতন মহলে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ। তারাও চান এ হত্যা কান্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত