প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও বাংলাদেশী অপুকে বিয়ে করলো ইউক্রেনের এলিজাবেথ দামেস্কা ওরফে লিজা (ভিডিও)

ডেস্ক রিপোর্ট : [২] গল্পটা বাংলাদেশী অপু ও ইউক্রেনের লিজার। যে গল্পটা হার মানায় সিনেমাকেও। পৃথিবীকে সুন্দর করেছে প্রেম। প্রেমই মানুষকে মানবিক করে তোলে। এমনই এক বিরল প্রেমের মূল চরিত্র লিজা। না, কোনো নাটক বা সিনেমার গল্পের মতো নয়, ইউক্রেনের এই মেয়েটি বাংলাদেশের মৃত্যু পথযাত্রী অপুকে ভালোবেসে ফেলে।

[৩]অপুর নিশ্চিত মৃত্যুর কথা জেনেও লিজা অপুকে বিয়ে করে। অপু বেঁচে থাকা পর্যন্ত ২৪টা ঘণ্টাই লিজা সময় দিয়ে গেছে তার প্রিয় স্বামীকে।

[৪]ইউক্রেনের ছোট একটা শহরের মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম এলিজাবেথ দামেস্কা। স্থানীয় কিছু পরিবারিক ভাঙ্গনের মতো বাবা আলাদা হয়ে চলে যাওয়ার পর মা আর নানির সাথে বড় হতে থাকে এলিজাবেথ। মায়ের দোকানের টাকা দিয়েই গ্রাজুয়েট শেষ করে। সংগ্রামের সাথে বড় হয়ে সন্তান আলাদা জীবনের সন্ধান পায়, এলিজাবেথ পেয়েছিল।

[৫]বয়স ২০ বা ২১ ইউক্রেনের রাজনৈতিক পালাবদল হলে এলিজাবেথের মা কর্মের সন্ধানে পোল্যান্ডে পারি জমায়। এমন এক সময় নিজের জীবনকে নিজেই চালাতে হবে।

[৭]২০১৬ সালের মে মাসের এক সকাল। জার্মানির জেনসন এলাকার একমাত্র বাংলাদেশি কৃষি উদ্যোক্তা মোক্তাজুল ইসলাম কাজলের স্টবেরি ক্ষেত থেকে তোলা হতো স্টবেরি। আর এতে কর্মের সন্ধানে আসা ইউক্রেন থেকে কিছু শ্রমিক কাজ করত। এদের মধ্যে এলিজাবেথ ও আছে। কয়েকজন বাঙ্গালিও কাজ করছিল এদের মধ্যে। বাঙ্গালিয়ানা শব্দের সাথে আর মানুষদের সাথে মিশে তার নাম হয়ে যায় লিজা। লিজা খুব কৌতুহলী মেয়ে।

[৮]ইউরোপের বিভিন্ন দেশ পারি দিয়ে এখানে আশ্রয়স্বরুপ অনেকে কাজ করে কাজলের কৃষি খামারে। এদের মধ্য একজন নরসিংদীর সামসুল আলম অপু। লিজার ভাল লেগে যায় অপুকে। বাংলাদেশি এই সংগ্রামী তরুণের হাত ধরে জীবনকে পাল্টে ফেলতে চায় সে। ভালই চলছিল দু’জনার জীবন। কিন্তু হঠাৎ ব্রেইন টিউমারে আক্রান্ত হয় অপু। এরপর শুরু ভালোবাসার এক অন্য গল্প।

[৮]এদিকে ডাক্তার বললেন, গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে সে। ও খুব অল্প কিছুদিন বেঁচে থাকবে পৃথিবীতে।

[৯]এর ভিতর লিজার এই তুমুল আগ্রহে এর ভিতরেই ইসলামি মোতাবেক একদিন ছোট আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়েই এদের বিয়ে দিয়ে দেন মোক্তাজুল ইসলাম কাজল। লিজাকে পেয়েও বেশি দিন থাকা হয় নি অপুর। তার পরও একদিন পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে যেতে হয় তাকে। এর পর পরই বাঙ্গালি গৃহবধূর মতো নরসিংদীর প্রত্যান্ত গ্রামে মানিয়ে নিতে থাকে। থাকতে থাকে পরিবারের খুব কাছের হয়ে। সবাই যেন ওর মধ্যেই খুঁজতে থাকে হারিয়ে যাওয়া অপুকে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত