প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]বিক্ষোভের সময় হোয়াইট হাউসে মাটির নীচের বাঙ্কারে লুকালেন ট্রাম্প

লিহান লিমা: [২] মিনেসোটায় পুলিশের হাতে জর্জ ফ্লয়েড নামের এক কৃষাঙ্গ যুবকের হত্যার ঘটনায় রোববার হোয়াইট হাউসের বাইরে বিক্ষোভ চরমে ওঠে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় নামাতে হয় সেনাবাহিনী। কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়া হয়। এই পরিস্থিতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হোয়াইট হাউসের আন্ডারগ্রাউন্ড বাঙ্কারে নিয়ে যান তার নিরাপত্তা রক্ষীরা।

[৩]দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমসের এই খবর জানিয়েছে। প্রায় এক ঘণ্টা বাঙ্কারের মধ্যে কাটিয়েছেন ট্রাম্প। জানা গেছে, ওই বাঙ্কার থেকে তাঁকে ওপরে তোলার পরেও নাকি বেশ আতঙ্কেই ছিলেন ট্রাম্প।

[৪]প্রথম দিকেই বিক্ষোভকারীদের মাঝপথেই আটকে দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল সিক্রেট সার্ভিস ও পুলিশের। কিন্তু বিক্ষোভকারীদের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়তে থাকে। এতে ঘাবড়ে যান ট্রাম্প। ফলে সুরক্ষার জন্যই তাঁকে আন্ডারগ্রাউন্ডে পাঠানো হয়।

[৫] গত ২৫ মে মিনেসোটাতে জর্জ ফ্লয়েড নামের ওই কৃষ্ণাঙ্গ যুবককে হেফাজতে নেওয়ার সময় রাস্তাতেই তাঁর গলায় নিজের হাঁটু দিয়ে চেপে রাখেন পুলিশ সদস্য ডেরেক শভিন। বারবার জর্জ আকুতি জানাচ্ছিলেন, তিনি শ্বাস নিতে পারছেন না। কিন্তু কিছুতেই পা তোলেননি ডেরেক। কিছুক্ষণ পরে সেখানেই মৃত্যু হয় জর্জের।

[৬]শুক্রবারই ওই যুবকের হত্যার বিচারের দাবিতে বিক্ষোভের সময় মিনেসোটা, নিউইয়র্ক এবং আটলান্টায় পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। সিএনএন-এর প্রধান কার্যালয়ের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা একটি পুলিশের গাড়িতেও অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষোভকারীরা। এ ঘটনায় প্রায় ৩০টি অঙ্গরাজ্যে কারফিউ ও সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

[৭]হত্যার দায়ে অভিযুক্ত ডেরেক শভিনকে গ্রেপ্তারের পর কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট চার পুলিশ সদস্যকে তৎক্ষণাই বরখাস্ত করা হয়। ফ্লয়েডের পরিবার জড়িত চার পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়েরের দাবি জানিয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত