প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] গণপরিবহনে চলাচল করা গাড়ির ৩০ ভাগই অকেজো, শুরুতেই মালিকরা ক্ষতির সম্মুখীন

সুজিৎ নন্দী: [২] প্রায় ৭০দিন পরে থাকা গনপরিবহনের প্রায় ৩০ ভাগই অকেজো হয়ে পড়েছে। পরিবহনগুলো সড়কের পাশে, গ্যারেজ কিংবা টার্মিনালে পার্কিং করে রাখা ছিল। এই দীর্ঘসময় সচল না থাকায় রক্ষণাবেক্ষণের অভাব এবং রোদ-বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পরিবহনগুলো। এতে ব্যাটারি, টায়ার, ব্রেক-শো, গ্যাসের লাইন, বসার সিটগুলোসহ ভেতরের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রাংশ অকেজো ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পরিবহন মালিকরা জানিয়েছেন, বিকল হয়ে পড়া এসব যন্ত্রাংশ মেরামতে হিমশিম খেতে হবে তাদের।

[৩] ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ বলেন, করোনার কারণে পরিবহন বন্ধ থাকায় দৈনিক প্রায় ৫শ’ কোটি টাকার ক্ষতির মুখে পড়েছে পরিবহন খাত। কিন্তু এখন যেটা দেখছি, এর পরিমাণ আরও বেশি। দুই মাসের বেশি সময়ে এই ক্ষতির পরিমাণ ৩৫ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে।

[৪] বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের নেতা রমেশ ঘোষ বলেন, দীর্ঘদিন পরিবহন না চলার কারণে বিভিন্ন যন্ত্রাংশ বিকল হয়ে পড়েছে। আমাদের দূরপাল্লার প্রতিটি গাড়ি রাস্তায় নামাতে এক থেকে দুই লাখ টাকা গড়ে খরচ হবে। প্রতিটি পরিবহনের ব্যাটারি ও টায়ার বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ব্যাটারি নষ্ট হয়ে গেছে।

[৫] তিনি আরো বলেন, টায়ার শক্ত হয়ে পড়েছে, যা ব্যবহার করা যাবে না। এ দুটি জিনিস নতুন করে প্রতিস্থাপন করে যানবাহন চালাতে হবে। এ ছাড়া ইঞ্জিনের তেল ও মবিলসহ ভেতরের অনেক যন্ত্রাংশ বিকল হয়ে যাবে। এগুলো মেরামত করতে অনেক বেগ পেতে হবে। একসঙ্গে এতো মিস্ত্রি বা ইঞ্জিনিয়ার পাওয়া অনেক কঠিন হবে।

[৬] একাধিক পরিবহন মালিক জানান, করোনার কারণে আয় বন্ধ থাকলেও পরিবহনের বিপরীতে নেওয়া ব্যাংক লোন এবং চালক-হেল্পারদের বেতনভাতা পরিশোধ করতে হচ্ছে। এর ওপর পরিবহনের এমন ক্ষতি তাদের আরও অর্থনৈতিক সংকটের দিকে ঠেলে দিয়েছে। এমন ক্ষতি পোষাতে অনেক বেগ পেতে হবে পরিবহন খাতকে।

[৭] একজন গাড়ির মিস্ত্রি জানান, একটি পরিবহন যখন বিভিন্ন কারণে দীর্ঘদিন বসে থাকে তখন এই দুটি জিনিস বিকল হওয়াটা নিশ্চিত। এর সঙ্গে আরও কয়েকটি জিনিস যুক্ত হয়। বিশেষ করে, গাড়িতে রাবারের জিনিসগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ ছাড়া ব্রেক-শো, গ্যাসের লাইন, বসার সিটগুলোও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর বাইরে রোদ বা বৃষ্টিতে থাকার কারণে গাড়ির বডিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। আমরা যেটা এখন দেখছি। আগে এভাবে আমরা কখনও এমন ক্ষতির মুখোমুখি হইনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত