প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] চীন ভীতি ছড়িয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় সুবিধাজনক অবস্থায় ট্রাম্প (ভিডিও)

টিভিএনএ রিপোর্ট: [২] বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। এরইমধ্যে সেখানে মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ছাড়িয়েছে। যা বিশ্বের মোট মৃতের সংখ্যার এক তৃতীয়াংশ। ভিয়েতনাম যুদ্ধের পর এতো বেশি সংখ্যক আমেরিকানের মৃত্যুর ঘটনা আর ঘটেনি।

[৩] করোনাভাইরাস চীনের ল্যাবে তৈরি হয়েছে বা এটি চীনা ভাইরাস এমন অভিযোগ একাধিকবার করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর এই অদৃশ্য ভাইরাসে যত বেশি মানুষের মৃত্যু হচ্ছে, চীনের প্রতি আক্রমণের ভাষা ততই শাণিত করছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং তার রাজনৈতিক মিত্ররা।

[৪] চলতি বছরের নভম্বেরে আমেরিকায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। ট্রাম্প দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হবার জোড় চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু করোনাভাইরাস পরিস্থিতি তার জন্য অস্বস্থিকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই নির্বাচনে তাকে পরিজিত করতে চীন উঠেপড়ে লেগেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স সহ অনেক মিডিয়াতেই তিনি বলেছেন।

[৫] তার এসব অভিযোগ আমেরিকানরা কিভাবে নিচ্ছে ও চীনকে অভিযুক্ত করে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কী কী বিষয়ে লাভবান হতে পারেন বা কেন করছেন, সে সম্পর্কে বিশ্লেষণ করেছেন আমেরিকা প্রবাসী সাংবাদিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক ইমরান আনসারী।

[৬] তিনি জানান, এই ভাইরাসের জন্য ট্রাম্প চীনকে অভিযুক্ত করে যেসব মন্তব্য করেছেন তার পক্ষে কোনও প্রমাণ এখনও কেউ দেখাতে পারেনি। এই বিষয়ে এরইমধ্যে অনেক গবেষণা হয়েছে, পাবলিক জরিপ হয়েছে কিন্তু কোথাও সেটি প্রামাণিত হয়নি যে এই ভাইরাস চীনের সৃষ্টি। কিন্তু স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন আসে যে তাহলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ও প্রশাসন থেকে কেন এই অভিযোগ আসছে।

[৭] তিনি বলেন, এর একটি বড় কারণ হচ্ছে পারষ্পরিক অবিশ্বাস। এই ভাইরাসের ভয়াবহতা ও তীব্রতা চীন গোপন করেছে এটিই বিশ্বাস করে যুক্তরাষ্ট্র। যেহেতু চীনে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই, সেজন্য ভাইরাসটির প্রকৃত চিত্র বিশ্ব জানতে পারেনি এবং সরকারও তা চায়নি। স্যাটেলাইট ছবি ও সাধারণ মানুষের মোবাইল ফোন রেজিস্ট্রেশন তথ্যে অনেক হিসেবেই এখন গোলমাল দেখা যাচ্ছে। এসব কারণেই পারষ্পরিক অবিশ্বাস একটি বড় কারণ আছে এসব অভিযোগের পেছনে। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে সম্প্রতি যে বিশাল তথ্য চুরি হয়েছে তার অন্যতম প্রধান অভিযুক্ত দেশ চীন।

[৮] ইমরান আসনারী বলেন, চলতি বছরের শেষ দিকে হবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এই নির্বাচনে ট্রাম্প দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হতে জোড় চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। কোভিড-১৯ পরিস্থিতি মোকাবিলায় তিনি চরমভাব ব্যর্থ হয়েছেন। কিন্তু এই ব্যর্থতাকে পেছনে ফেলে দিতেই তিনি এই ইস্যুটিকে সামনে নিয়ে আসছেন। আর চীন বিরোধী যেসব ভিডিও বা প্রচারণা চালানো হচ্ছে রিপাবলিকানদের পক্ষ থেকে তার কিছু সুবিধাও পাচ্ছেন ট্রাম্প। সম্প্রতি পিউ রিসার্চের পক্ষ থেকে যে জরিপ চালানো হয় তাতে দেখা যাচ্ছে দুই-তৃতীয়াংশ মানুষ চীন সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা পোষণ করেছেন। যা গত ১৫ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে রয়েছে। আসন্ন মার্কিন নির্বাচনে চীন ইস্যুটি গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলবে বলে মনে করছেন মার্কিন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

[৯] আমেরিকা যেমন চীনকে এই ভাইরাসের জন্য অভিযুক্ত করছেন, তেমনি বিশ্বের একমাত্র দেশ ইরান এই পরিস্থিতির জন্য আমেরিকাকে অভিযুক্ত করছে। এ সম্পর্কে ইমরান আনসারী বলেন, এটিও রাজনীতির অংশ। আমেরিকার জন্য হুমকিস্বরূপ দেশগুলোর মধ্যে ইরান অন্যতম। আবার ইরান চীনের বন্ধু রাষ্ট্র। তবে এই বিষয়ে গবেষণা চলছে, এখনও চুড়ান্তভাবে বলার সময় আসেনি।

[১০] এই ভাইরাসটি ছড়িয়েছে চীন থেকে।কিন্তু ইরান কেন চীনকে অভিযুক্ত না করে আমেরিকাকে করছে, এ বিষয়ে রেডিও তেহরানের সিনিয়র সাংবাদিক ড. সোহেল আহম্মেদ বলেন, আমেরিকার দীর্ঘ দেড়শ বছরের ইতিহাসে এমন অনেক ঘটনা তারা ঘটিয়ে বলেই ইরানিরা প্রথমেই দায়ী করছে আমেরিকাকে। তারা জীবাণুঅস্ত্র ব্যবহার করেছে রেড-ইন্ডিয়ানদের ওপর। এছাড়া আফ্রিকায় ইবোলা ভাইরাস আমেরিকা ছড়িয়েছে তা প্রমাণিত হয়েছে। কিউবায় একই ঘটনা ঘটিয়েছে আসির দশকে। এসব কারণে সন্দেহের আঙ্গুল তাদের দিকেই উঠেছে। তবে এবিষয় অনুসন্ধান চলছে।

[১১] সোহেল আহম্মেদ বলেন, ইরানের রাজনীতিবিদ ও জনগণ মনে করেন ট্রাম্প এই ইস্যুটিকে কাজে লাগিয়ে আগামী নির্বাচনে জয়ী হওয়ার কৌশল নিয়েছেন। তিনি এই ভাইরাসকে নিয়ে একটি রাজনীতি খেলছেন। নির্বাচন যতই কাছাকাছি আসবে আরও অনেকগুলো রাজনীতির খেলা তিনি খেলবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত