প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যার বিচার ও ক্ষতিপূরণ চেয়েছে বাংলাদেশ : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

তরিকুল ইসলাম : [২] ত্রিপোলিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এস কে সেকান্দার আলী বৃহস্পতিবার রাতে জানিয়েছেন, মানবপাচারকারীদের মুক্তিপণ ও নির্যাতনের অসহনীয় পর্যায়ে চলে গেলে তাদেরই একজন লিবিয়ান নাগরিককে হত্যা করা হয়।

[৩] অক্ষত অবস্থায় পালিয়ে আসা এক বাংলাদেশির বরাত দিয়ে কূটনৈতিক পত্রে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে রাষ্ট্রদূত জানান,
২৬ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া আহত ১১জনের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

[৪] পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এ গভীর শোক প্রকাশ করে বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, বেঁচে যাওয়াদের কাছ থেকে ভুক্তভোগীদের পরিচয় জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।

[৫] বাংলাদেশের পাচারকারীর তথ্য জানার চেষ্টা করা হচ্ছে যেন তাদের আইনের আওতায় আনা যায়।

[৬] শুক্রবার ঢাকায় চীন দূতাবাস নিন্দা জানিয়ে বলেছে, সেখানে নিহতদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি আমরা সমবেদনা জানাই। একইসঙ্গে নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করি।

[৭] রয়টার্স তাদের প্রতিবেদনে জানায় লিবিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মিজদাহের সুরক্ষা বিভাগকে অপরাধীদের গ্রেপ্তার এবং তাদের বিচারের আওতায় আনার জন্য সমস্ত পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়েছে।

[৮] ব্র্যাকের অভিবাসন কর্মসূচি প্রধান শরিফুল হাসান বলেন, প্রয়োজনে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার সহযোগিতা নিতে হবে।

[৯] এর সঙ্গে জড়িতদের সবাইকে খুঁজে বের করতে বিভিন্ন দেশকে প্রয়োজনে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

[১০] বাংলাদেশ থেকে লিবিয়ায় কর্মী পাঠানো গত পাঁচ বছর ধরেই বন্ধ। তারপরেও কী করে এতো লোক বাংলাদেশ থেকে লিবিয়া যাচ্ছে সেই ঘটনার তদন্ত করা উচিত।

[১১] আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার লিবিয়ার মুখপাত্র সাফা এমসেহলি বলেন, নৃশংস এ ঘটনার খবর আমরা জানতে পেরেছি। বিস্তারিত জানার চেষ্টা করছি। এ ঘটনায় আহতদের চিকিৎসায় সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।

[১২] বিবিসি জানায়, দেশটির মিজদা শহরে নিহত ৩০ অভিবাসীর মধ্যে ২৬ জনই বাংলাদেশি। অন্য চারজন আফ্রিকান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত