প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বিরামপুরে অ্যালকোহল পানে স্বামী-স্ত্রীসহ ১০ জনের মৃত্যু আরো ছয়জন দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছেন

আব্দুল্লাহ মামুন : [২] বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন বিপিএম, পিপিএম (বার) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ এক হোমিও চিকিৎসককে আটক করেছে।

[৩] মৃতরা হলেন- বিরামপুর পৌর এলাকার মাহমুদপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে আ. মতিন, সুলতান আলীর ছেলে মহসীন আলী, তোজাম্মেলের ছেলে আজিজুল, হঠাৎপাড়া মহল্লার স্বামী শফিকুল ও স্ত্রী মঞ্জুয়ারা, মাহমুদপুর গ্রামে আ. আজিজের ছেলে সোহেল রানা, আবুল হোসেনের ছেলে মনোয়ার হোসেন, আ. খালেকের ছেলে আবদুল আলীম এবং ইসলামপাড়ার তাপস বাক্সির ছেলে অমৃত্যু বাক্সি ও কাজীপাড়া মহল্লার ইসরাফিলের ছেলে আনোয়ার হোসেন।

[৪] মঙ্গলবার নেশা করার অ্যালকোহল পান করেন তারা। সন্ধ্যা থেকে তারা অসুস্থবোধ করলে বুধবার সকাল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে একে একে ১০ জনের মৃত্যু ঘটে। স্পিরিট পানকারী আরো ছয়জন দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছেন।
[৫] খবর পেয়ে বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুর রহমান, পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার টুটুল, সার্কেল এএসপি মিথুন সরকার ও বিরামপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মরদেহগুলো থানা হেফাজতে নিয়েছেন।

[৬] মৃত মহসীনের বাবা সুলতান আলী জানান, নিহতরা আগে থেকে মাদকাসক্ত ছিল। স্পিরিট পানে তারা অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন।
[৭] পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার টুটুল জানান, বিরামপুর শহরের অনেক হোমিও দোকানে অবাধে স্পিরিট বিক্রি হয়। এই স্পিরিট পানেই তাদের মৃত্যু হয়েছে।

[৮] বিরামপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, কি ধরনের নেশা তারা পান করেছিল, তা পরীক্ষার জন্য মরদেহ দিনাজপুর মর্গে পাঠানো হয়েছে। থানা পুলিশ মাহমুদপুর গ্রামের হোমিও চিকিৎসক আবদুল মান্নানকে আটক করেছে।
[৯] পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন বিপিএম, পিপিএম (বার) বলেন, দিনাজপুর জেলার কোথাও স্পিরিট বা নেশাজাতীয় দ্রব্য বিক্রি থেকে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে। এর পরও কেউ বিক্রি করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। যুগান্তর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত