প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] অনিশ্চিত ভবিষ্যতের শঙ্কা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে বাঙালিদের ঈদ উদযাপন (ভিডিও)

টিভিএনএ রিপোর্ট: [২] করোনাভাইরাসে বিশ্বে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।এখন মৃতের হার কিছুটা কমে আসলেও এমন মৃত্যুর মিছিল যেনো সবকিছু থমকে দিয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই ঈদের আমেজে অনেকটাই ভাটা পড়েছে আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাঝে। এছাড়া গত তিন মাস ধরে জীবন জীবিকার সব পথই বন্ধ রয়েছে। হাতে থাকা পুঁজির প্রায় সব খরচ হয়ে গেছে। ভবিষ্যৎ কী হবে সে বিষয়েও আতঙ্ক তাড়া করছে বাঙালি প্রবাসীদের।

[৩] প্রতি বছর যুক্তরাষ্ট্রে খোলা মাঠে অনেক ঈদ জামাতের আয়োজন হলেও এবার মাত্র কয়েকটি মাঠে জামাত হয়েছে। আর বাঙালি অধ্যুষিত নিউইয়র্কেও মাত্র দুটি মাঠে জামাত হয়েছে, তবে সেখানে মুসল্লিদের উপস্থিতি ছিল খুবই নগন্য।

[৪] যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আমজাদ হোসেন এ সম্পর্কে বলেন, এক যুগেরও বেশি সময় ধরে নিউইয়র্কে আছি। প্রতি বছর যেভাবে ঈদ আসে এবার তার চিত্র ছিল পুরোই ভিন্ন। বেশ দূরে একটি মাঠে জামাতের আয়োজন ছিল, কিন্তু স্বাস্থ্য ঝুঁকি আছে বলে ঘরেই নামাজ পড়েছি। অন্যান্য প্রবাসীদের একই কথা। একরামুল আলম নিউইয়র্কে আছেন বিশ বছর হতে চলল।

[৫] তিনি জানান, প্রতি ঈদে বাঙালি ও অবাঙালি মুসলমান, এমনকি অন্য ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষের মাঝে ঈদের আনন্দ দেখা গেছে। সবাই ঈদের আনন্দে শরিক হয়েছে। কিন্তু এবার সবাই ঘরে বসেই ঈদের দিন কাটিয়েছে।

[৬] আমজাদ হোসেন জানান, ভারতীয়, পাকিস্তানি ও বাংলাদেশিদের মাঝে সঞ্চয়ের প্রবণতা আছে। তাই এই লকডাউনের মাঝে তারা চলতে পারছে। কিন্তু ইউরোপিয় ও আফ্রিকানদের মাঝে সঞ্চয়ের প্রবণতা কম। এসব জাতির মাঝে হতাশা সৃষ্টি হয়েছে। লকডাউনের মাঝে এরইমধ্যে তারা রাস্তায় নেমে পড়েছে। আগামী দুই তিন সপ্তাহ পর এদের আর ঘরে রাখা সম্ভব হবে না।

[৭] একরামুল আলম জানান, যারা বৈধভাবে বসবাস করছে তাদের সরকার প্রণোদনা দিচ্ছে। কিন্তু যারা অবৈধ তাদের কষ্টের শেষ নেই। তবে চিকিৎসা সেবা ও খাদ্য পাচ্ছেন অবৈধ প্রবাসীরা।

[৮] নিউইয়র্কের চিকিৎসা ব্যবস্থার প্রতি সন্তুষ্টি প্রকাশ করে এই দুই প্রবাসী বলেন, পিপিই ও হাসপাতালের অপর্যাপ্ততা থাকার পরেও চিকিৎসকরা সেবা দিকে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। তাদের চেষ্টার কোনও ত্রুটি ছিল না। আর এই করোনার মাঝে শুধু বাঙালি নয় পুরো আমেরিকায় করোনা চিকিৎসায় এক অনন্য নজির স্থাপন করেছেন বাংলাদেশি ডা. ফেরদৌস। তিনি বাঙালি জাতির গর্ব। তাকে নিয়ে আমেরিকার বিভিন্ন জার্নাল এবং বিশ্ব মিডিয়াতেও অনেক খবর প্রচার হয়েছে।

 

সর্বাধিক পঠিত