প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]কুমিল্লার মেঘনায় দুই রেমিটেন্স যোদ্ধার উপর হামলার দৃষ্টান্তমূলক বিচার চায় পরিবার

দাউদকান্দি প্রতিনিধি : [২]কুমিল্লা উত্তরের সর্বশেষ থানা মেঘনা।নদী বেষ্টিত বদ্বীপ এলাকা চর কাঁঠালিয়া। গ্রামটির পূর্বে দাউদকান্দি, পশ্চিমে মেঘনা,উত্তরে তিতাস, দক্ষিনে গজারিয়া। অথচ এ গ্রামটি আকস্মিক স্বঘোষিত সন্ত্রাসীদের আস্তানা হয়ে ওঠেছে সম্প্রতি।মাথাচাড়া দিয়ে ওঠছে কিছু দুঃস্কৃতকারী। শান্তির জনপথকে হঠাৎ অশান্ত করে তুলছে একটি গোষ্ঠী। কুমিল্লার মেঘনা উপজেলায় দুই রেমিটেন্স যোদ্ধার উপর হত্যাচেষ্টার উদ্দেশ্যে নামধারী সন্ত্রাসী ও দুবৃর্ত্তদের হামলায় গুরতর আহত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

[৩]আহতরা হলেন উপজেলার লুটের চর ইউনিয়নের চর কাঠাঁলিয়া গ্রামের শাহজাহান চেয়ারম্যান এর ছেলে প্রবাসি কবির হোসেন ও রতন মিয়ার ছেলে প্রবাসি মাফুল মিয়া।দীর্ঘদিন প্রবাস জীবন শেষে দেশে এসেছিলেন একটু ক্লান্ত ঝেড়ে ফেলে স্বস্তির সতেজ নিঃশ্বাস ফেলতে।কিন্তু এলাকার দুর্বৃত্ত নামধারী স্বঘোষিত সন্ত্রাসীসহ দাউদকান্দি ও মেঘনা থানা পুলিশের তালিকাভুক্ত একাধিক মামলার আসামি ডালিমসহ কিছু দুঃস্কৃতকারী কবির ও মাহফুলের উপর অতর্কিত হামলা করে আহত করে। এর মধ্য কবির গুরতর অবস্থায় সোনারগাঁয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।দৌঁড়ে কিছুটা রক্ষা পায় মাফুল।
[৪]এজহারসূত্র ও এলাকাবাসির সাথে কথা বলে জানা যায়, গত ১৯ মে রোজার মাসে ইফতারের আগমুহূর্তে পূর্বপরিকল্পিতভাবে ইফতার এর ৩০ মিনিট আগে দুটি মামলার এজহার নামীয় ১ নম্বর আসামী সুরুজ ও ২ নম্বর আসামি সেকান্দর এর নির্দেশে এলাকার চিহ্নিত দুঃস্কৃতকারীরা তাদের উপর ভিন্ন ভিন্ন সময়ে দুই দফায় হামলা করে।

[৫]এ বিষয়ে কবির হোসেন এর পিতা মামলার বাদী শাহজাহান চেয়ারম্যান এ প্রতিবেদকের সাথে কথা হলে তিনি বলেন,” আমার ছেলের উপর যেসব সন্ত্রাসী, এলাকার ভূমিদুস্যু চাঁদাবাজ বিনাদোষে চলার পথে গতিরোধ করে এমন নগ্ন হামলা করে আহত করেছে।আমি মেঘনা থানা পুলিশের কর্মকর্তাদের প্রতি বিনীত অনুরোধ জানাই তাদেরকে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করণে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখুন।

[৬] অপর মামলার বাদী ও রেমিটেন্স যোদ্ধা প্রবাসি মাফুল মিয়া বলেন,” আমাকে নির্দোষভাবে পবিত্র রমজান মাসে আসামী সুরুজ ও সেকান্দর এর নির্দেশে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে আক্রমণ করে,আমাকে একদল দুঃস্কৃতকারী গতিরোধ করে সাথে থাকা ৫০ হাজার ছিনিয়ে নেয়,আর ভাগ্যক্রমে আল্লারহ কৃপায় আমি দৌঁড়িয়ে আত্মরক্ষা করি। মেঘনা থানা পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে অনুরোধ করে বলছি সমাজের এসব দুঃস্কৃতকারীদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনুন।

[৭]এ বিষয়ে মেঘনা থানার অফিসার ইন-চার্জ আব্দুল মজিদ বলেন,” বিষয়টি আমি অবগত হয়েছি।থানায় দুটি অভিযোগ হয়েছে।কেউ যদি আইন হাতে তুলে অন্যায় করে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।”

[৮]উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ মিয়া রতন শিকদার বলেন,” ঘটনা আমি শুনেছি তবে রোজার মাসে যদি কেউ প্রবাসিদের উপর হামলা করে থাকে তবে সেটা অবশ্যই অন্যায় করেছে।”

[৯]এ বিষয়ে লুটেরচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার সানাউল্লা শিকদার এর ব্যবহৃত মুঠোফোনে কল করা হলে তার নাম্বারটি বন্ধ থাকায় মন্তব্য জানা যায় নি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত