প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে সংখ্যালঘুদের উপর হামলা, পুলিশ’সহ আহত ২৫

বিপ্লব বিশ্বাস : [২] করোনা দৃর্যোগ কালেও থেমে নেই সংখ্যালঘু হিন্দুদের উপর হামলা চালিয়ে বাড়িঘর দখলের। এবার চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার বৈরাগ ইউনিয়নের বন্দর গ্রামে স্থানীয় চেয়ারম্যানের নেতৃত্ব হামলা চালায় হিন্দুদের উপর। জমি দখলের উদ্দেশ্য এ হামলায় পুলিশসহ ২৫ জন আহত হন।

[৩] হামলায় আহত সুমেন সিংহ জানান,আমরা প্রায় সংখ্যালঘু ২৫টিপরিবার বসবাস করি। গত শুক্রবার সকাল ৯ টায় আমাদের পৈতৃক সম্পত্তি দখলে আসে বৈরাগ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোলায়মানের নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জনের একটি দল। এদের সবার হাতে ছিল দেশীয় ধারালো অস্ত্রসহ লাঠিসোঁটা।

[৪] কিন্তু আমরা জমির মালিকরা আমাদের পৈতৃক জায়গা দখলে বাঁধা দেই। এ সময় সন্ত্রাসীরা হামলা চালায় আমাদের উপর। ঘটনাস্থলে আহত হয় সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবারের ১১ সদস্য। বন্দর গ্রামে আমাদের ২১ গন্ডা জায়গার মধ্যে ১৬ গন্ডা জায়গা ইউনিয়ন পরিষদের নামে দান করে দেয় আমাদের পূর্বপুরুষরা। আর ৫ গন্ডা জায়গায় সীমানা বাইরে ছিলো। এখনও পর্যন্ত কোন চেয়ারম্যান এই ৫ গন্ডা জায়গা দাবি করেননি।

[৫] কিন্তু বর্তমান চেয়ারম্যান আমাদের জায়গাটা দখল করার জন্য উঠেপড়ে লাগে। ইউনিয়ন পরিষদের সীমানা দেয়াল দেয়ার নাম করে তারা এই জায়গা দখলে নিতে চাইলে আমরা বাধা দিই। এ সময় চেয়ারম্যান আমাদের উপর হামলার নির্দেশ দেয়। সন্ত্রাসীদের হামলার ঘটনার পর ফাঁড়ির এসআই পারভেজসহ আরেকজন পুলিশ সদস্য এসে আপোষের কথা বলে।

[৬] চেয়ারম্যানের নির্দেশেই আমাদের পুলিশ ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে চেয়ারম্যানের নির্দেশে তার দলবল আবারও আমাদের উপর হামলা চালায়। এসময় এসআই পারভেজ বাঁধা দিতে চাইলে তাকেও কিল-ঘুষি মারতে থাকে এরা। পরে থানা থেকে পুলিশ এসে আমাদেরকে উদ্ধার করে।”

[৭] এ হামলায় অন্তত ৩০ জন আহত হয়। তারমধ্যে দু’জনের অবস্থা খুব খারাপ। তাদের একজন পমিলা (৬০) আরেকজন প্রবাস সিংহ (৪৫)। প্রবাসের এখনও জ্ঞান ফিরেনি। এত লোককে কুপিয়ে রক্তাক্ত করলেও কর্ণফুলী থানার ওসি মামলাও নেয়নি।

[৮] এ ব্যপারে এসআই পারভেজ হামলার ঘটনা সীকার করে বলেন, এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে। বিষয়টি মিমাংসার চেষ্টা চলছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত