প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ফেসবুক লাইভে তামিমকে মাশরাফি, তোরে প্রথম দেখি হাফপ্যান্ট পরা আর গায়ে একটা স্যান্ডো গেঞ্জিতে

নিজস্ব প্রতিবেদক : [৩] তামিম ইকবালের ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই তাকে দেখে আসছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। ক্রিকেটে তিনি এতদূর কিভাবে আসলেন, পরিবারের কোন সদস্য তাকে বেশি সহযোগিতা করেছেন। এসব নিয়ে তামিমের সঙ্গে বিস্তারিত কথা বলেন মাশরাফি।

[৪] সোমবার (৪ মে) রাতে তামিমের সঙ্গে ফেসবুক লাইভে এক আড্ডায় অনেক পেছনের গল্পও টেনে আনেন মাশরাফি। করোনাকালীন গৃহবন্দী সময়ে ভিন্ন আমেজ দিতেই জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের নিয়ে ধারাবাহিক অনলাইন আড্ডা দিচ্ছেন তামিম।

[৫] তামিম মাশরাফিকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, ‘মাশরাফি ভাই, আমাকে প্রথম কবে দেখেছিলেন মনে আছে?’

[৬] মাশরাফি চট করে মনে করেন প্রথম দেখার স্মৃতি, ‘তোরে নিয়ে কতো কাহিনী। তোরে প্রথম দেখি তুই হাফপ্যান্ট পরা আর গায়ে একটা স্যান্ডো গেঞ্জি। তোর বড় ভাই নাফিস তো আমার বন্ধু। আমরা চট্টগ্রামে টেস্ট ম্যাচ খেলতে গিয়েছিলাম। তো গিয়ে দেখি তুই তোর বাসায় দুই তিনজন বন্ধুর সঙ্গে গাড়ি নিয়ে খেলছিস। এখন আমাদের বাচ্চারা যেভাবে খেলে। আমি জিজ্ঞেস করেছিলাম, ভাইয়া তুমি ভাল আছ? ‘জি ভাইয়া’ সেটা বলতেও তুই লজ্জা পাচ্ছিলি। সেই তামিম ইকবাল এখন বাংলাদেশের অধিনায়ক। দেখে ভাল লাগছে।

[৭] এরপরও মাশরাফি টেনে আনেন নাফিসের প্রসঙ্গ, ‘একটা জিনিস বলি, তোর এই পর্যন্ত আসার পেছনে তোর ভাইয়ের অবদান সবচেয়ে বেশি। তোর বাবা অন্যরকম মানুষ ছিলেন, তোর মাকেও চিনতাম, তোর চাচারাও আছেন। তবে তোর ভাইয়ের অবদান সবচেয়ে বেশি। তোর ভাই কিন্তু তোদের জন্য যে ছাড় দিয়েছে। তোর জন্য বিশেষ করে, তা অবিশ্বাস্য। তোর ভাই যা করেছে। তুই জানিস না, আমরা জানি।

[৮] ওয়ান পেন্স বার্গার খাইত রে ভাই (বিদেশে খেলতে গেলে)। আমি একদিন ওরে বলেছিলাম, “তুই যদি শরীরেই না দিস তুই বাঁচবি কি করে আর খেলবি কি করে। পরে আমি বুঝেছি কেন করত। তুই যেন একটা ভাল ব্যাট দিয়ে খেলতে পারিস।

[৯] বাংলাদেশের হয়ে ১১ টেস্টেই ক্যারিয়ার থেমে যাওয়া নাফিসের জন্য আফসোসও ঝরে মাশরাফির কণ্ঠে, আমি আগেও বলেছি ওর (নাফিস) কিন্তু বাংলাদেশের সবচেয়ে সেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান হওয়ার মেধা ছিল। কোন কারণে হতে পারেনি। আল্লাহর রহমতে ওর সবকিছু তুই পেয়েছিস এটাই আরকি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত