প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কচি হাতে মুখ ঢাকা দুই শিশু (ভিডিও)

সময় টিভি অনলাইন : [২] ‘আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ’ এটি যেমন সত্য; তেমনি সত্য ‘শিশুদের কাছ থেকে’ও শেখার থাকে অনেক কিছু’। এই কথার বাস্তব প্রতিফলন দেখা গেলো বন্দরনগরী চট্টগ্রামের চান্দগাঁও এলাকায়। বুঝে হোক-কিংবা না বুঝে হোক-রিকশায় করে মায়ের সাথে যাওয়ার সময় ৩ থেকে ৪ বছর বয়সী দু’শিশুই হাত দিয়ে মুখ ঢেকে রেখেছিলো করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে। অথচ অনেক স্বাভাবিক মানুষ’ই এই আত্মরক্ষা বুঝতে পারছে না। সামনে সেনা তল্লাশি ছিলো, কিন্তু কেউ তাদের শিখিয়ে দেয়নি এমনটি করতে। শনিবার (০২ মে) বেলা ১২টার দিকে চান্দগাঁও থানার সামনে দেখা যায় এ চিত্র।

[৩] করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানোর অংশ হিসেবে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে কাজ করছে ক্যাপ্টেন মেহেদীর নেতৃত্বে সেনা বাহিনীর একটি টিম। এমনিতেই সাধারণ মানুষ নানা অজুহাতে রাস্তায় নামছে। তাদের সামাল দিতে সেনাবাহিনী অনেকটা দিশেহারা। এর মাঝে দেখা গেলো একটি মোটর সাইকেলে দু’ থেকে তিনজন আরোহী। তাদের থামিয়ে দু’জনকে যেমন সেনাবাহিনীর টিম নামিয়ে দিচ্ছিলো, তেমনি নিশ্চিত করছিলো মুখে মাস্ক পরা। রিকশা কিংবা সিএনজি চালিত অটোরিক্সা থেকেও নামিয়ে দেয়া হচ্ছিলো একাধিক যাত্রীকে।

[৪] এভাবেই যখন মিনিট দশেক ধরে চলছিলো সেনাবাহিনী এবং উৎসুক জনতার লুকোচুরি খেলা। ঠিক তখন’ই বহদ্দারহাটের দিকে আসছিলো একটি রিকশা। রিকশায় এক মা এবং তার দু’শিশু সন্তান। মায়ের মুখে মাস্ক থাকলেও শিশুগুলোর মুখে কোনো মাস্ক নেই। অবাক করা বিষয় সেনা তল্লাশির সামনে আশার আগেই দু’শিশু তাদের কচি হাত দিয়ে মুখে ঢেকে রাখে। এমনকি সেনাবাহিনীর অবস্থান পেরিয়ে যাওয়ার পর’ও তারা মুখ থেকে হাত নামায়নি। মাত্র ৩ থেকে ৪ বছর বয়সী এই দু’শিশুর এ ধরণের সচেতনতা দেখে সেখানে দায়িত্বে থাকা সেনা সদস্যরা’ও অবাক হয়ে যায়। শিশুদের অবাক করা এই দৃশ্য দেখে এক সেনা সদস্য মন্তব্য করেন, অবুঝ মানুষগুলো করছে বুঝ মানুষের কাজ, আর বুঝ মানুষগুলোকে শতবার বলার পরে’ও বুঝছে না।

[৫] মা ও দু’শিশুকে নিয়ে রিকশাটি দ্রুত চলে যায়। কিন্তু তার রেশ থেকে যায় অনেকক্ষণ।

[৬] কথা হয় সেনাবাহিনীর টহল টিমের প্রধান ক্যাপ্টেন মেহেদীর সাথে। ক্যাপ্টেন মেহেদীর মন্তব্য ছিলো এ রকম, ‘দেখলেন তো শিশু দু’টি কিন্তু নিজ থেকেই মুখে হাত দিয়ে রেখেছে। অর্থাৎ তারা বুঝতে পারছে আসন্ন বিপদ থেকে বাঁচতে হলে মুখে ঢেকে রাখতে হবে। কিন্তু রাস্তায় যেসব বড় মানুষ নামছে তাদের কোনো হুঁশ নাই। তাই আমরা এখন রাস্তায় যারা নামছে তাদের মাস্ক পড়তে বাধ্য করছি। এর বাইরে যারা বুঝে হোক-না বুঝে হোক রাস্তায় নামছে তাদের অবশ্যই রিকশা কিংবা সিএনজি অটোরিকশায় চড়তে গেলে একজনকেই চড়তে হবে। কোনো বাহনে একাধিক লোক থাকতে পারবে না।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত