প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ভার্চুয়াল কোর্ট চালুর সিদ্ধান্তে খুশি আইনজীবীরা, চান দ্রুত বাস্তবায়ন

এস এম নূর মোহাম্মদ : [২] হাইকোর্ট রুলস সংশোধন করে ভার্চুয়াল আদালত পরিচালনার বিষয়টি অন্তর্ভূক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের ফুলকোর্টসভা। আর তাই বিচারক ও আইনজীবীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

[৩] এদিকে বিষয়টি যুগপোযোগী সিদ্ধান্ত উল্লেখ করে জানিয়েছেন আইনজীবীরা। সেইসঙ্গে আগ্রহী সকল আইনজীবীকে প্রশিক্ষণের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন তারা।

[৪] ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার আব্দুল্লাহ মাহমুদ বাশার বলেন, রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি উপস্থাপনের জন্য আবেদনকারীর পিটিশনের কপি আগেই ই-মেইল করে পাঠাতে হবে। যাতে রাষ্ট্রপক্ষ প্রস্তুতি নিতে পারে এবং রাষ্ট্রের স্বার্থ সংরক্ষিত থাকে।

[৫] তিনি বলেন, ই-জুডিসিয়ারির আওতায় প্রশিক্ষণের জন্য আগ্রহী সব আইনজীবীকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। নইলে শুধু করপোরেট চেম্বারগুলো এর সুবিধা পাবে। আর সাধারণ আইনজীবী ও বিচার প্রার্থীরা বৈষম্যের শিকার হবে।

[৬] ব্যারিস্টার হুমায়ন কবির পল্লব বলেন, বিষয়টি অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক, সময়োপযোগী এবং প্রজ্ঞা সুলভ মনোভাবের বহিঃপ্রকাশ। এ উদ্যোগ আরো অনেক আগেই নেয়া প্রয়োজন ছিল।

[৭] তিনি বলেন, আমাদের পার্শ্ববর্তী ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ইতিমধ্যেই এ ভার্চুয়াল বিচার ব্যবস্থা চালু করেছে। করোনার সময় এটি চমৎকার ডেভেলপমেন্ট বলা যায়।

[৮] ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান বলেন, শুরুতে কিছুটা ধুম্রজাল সৃষ্টি হলেও ভার্চুয়াল কোর্ট চালুর জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে অধ্যাদেশ জারির আবেদন জানোর সিদ্ধান্ত যথাযথ হয়েছে বলে মনে করি । স্বদিচ্ছা থাকলে এক সপ্তাহের মধ্যে এটি সম্ভব। কিন্তু সকলে সে সুযোগ ব্যবহার করাটা হবে চ্যালেঞ্জের।

[৯] তিনি বলেন, ভার্চুয়াল কোর্ট চালু হলে সাংবিধানিক অধিকারের বিষয়গুলো এবং বিচারাধীন মামলার আসামিদের জামিনের আবেদন আগ্রাধিকার ভিত্তিতে শুনানি করা উচিতৎ।

[১০] অ্যাডভোকেট একলাছ উদ্দিন ভুইয়া বলেন, ভার্চুয়াল কোর্ট চালুর বিষয়টি সময়োপযোগী। একটি দেশের বিচার ব্যবস্থা কখনোই পুরোপুরি বন্ধ থাকতে পারেনা। এছাড়া আইনজীবীদেে সঙ্গে আইন সাংবাদিকদেরও প্রশিক্ষণের আওতায় আনার দাবি করেন তিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত