প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] করোনায় ক্ষতির মুখে রাজশাহীর আম, আশঙ্কা কৃষকের!

মুসবা তিন্নি : [২] ফলের রাজা বলা হয় আমকে। বাংলাদেশের রাজশাহী অঞ্চল গ্রীষ্মের মৌসুমি ফল আমের জন্য বিখ্যাত। তবে এবছর করোনা ভাইরাসের ভয়াল থাবায় সবকিছুই যেনো তার অস্তিত্ব হারাচ্ছে। এর বেশির ভাগ প্রভাবই পড়েছে কৃষিখাতে। লকডাউন হয়ে বাজার এবং পর্যাপ্ত অামদানি রপ্তানি বন্ধ থাকায় প্রয়োজনীয় সার ও কীটনাশক পচ্ছেন না আম বাগানের কৃষকেরা।

[৩] রাজশাহীর চাঁপাইনবাবগঞ্জ, বাঘা, পুঠিয়া, বানেশ্বর, দূর্গাপুর, গোদাগারী অঞ্চলে অামের বাগান সবচেয়ে বেশি। প্রতিবছর এসব অঞ্চল থেকে কোটি টাকার অাম রপ্তানি করা হয় দেশে ছাড়িয়ে বিদেশেও। তবে এবছর ফলন এবং রপ্তানিতে ক্ষতির অাশঙ্কা করছেন অনেক কৃষক।

[৪] বাঘা উপজেলার ঝন্টু নামের এক আম বাগান মালিকের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রতিবছরের মতো এবছরও অামগাছে প্রচুর মুকুল এসেছিলো এবং আম পরিচর্যার প্রাথমিক পর্যায় হচ্ছে অামের মুকুলের পরিপূর্ণ পরিচর্যা কিন্তু মার্চ মাসের শুরুর দিক থেকেই দেশে করোনার অস্থির পরিস্থিতি তৈরি হওয়ায় যারা বেশি সচেতন হওয়ার চেষ্টা করেছেন তারা অনেকেই আগে ভাগে বেশি বেশি সার ও কীটনাশক কিনে বাড়িতে মজুদ করে ফেলেছেন ফলে বাজারে প্রায় সময়ই প্রয়োজনীয় সার ও কীটনাশকের অভাব দেখা যাচ্ছে।

[৫] শাহানাজ একজন অাম ব্যবসায়ী প্রায় ৫ বিগা জমি তিনি লিজ নিয়ে আমের বাগান করেছেন তিনি বলেন, রাজশাহীর অাম জগৎ বিখ্যাত। আগে খুব কষ্টে দিন কাটাতেন, পরে কিছুটাকা লোন নিয়ে আমের বাগান লিজ নেয়ার চিন্তা করেন। প্রায় ৮ বছর ধরে অাম ব্যবসা করছেন..ফজলি, খেরসাপাত (হিমসাগর), গোপালভোগ, মহনভোগ ও ল্যাংড়া সব বিখ্যাত অামের কালেকশন রয়েছে তার কাছে। প্রতিবছর বেশ লাভবান হলেও এবছর খুব চিন্তায় রয়েছেন। কারণ প্রয়োজনীয় সার, কীটনাশক ও দেখভালের জন্য শ্রমিক পাচ্ছেননা। তাই এবছর গাছের ও অামের পরিপূর্ণ যত্ন নেয়া সম্ভব হচ্ছেনা। ভাটা পরতে পারে এবছরের অামের ব্যবসায় বলে অাশঙ্কায় রয়েছেন তিনি।

[৬] এ বিষয়ে জানতে রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক শামছুল হকের সাথে কথা বললে তিনি জানান, যেহেতু এখন একটা কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে সময় তাই প্রতিটা ক্ষেত্রই কিছু না কিনা ক্ষতির সম্মুখীন হবে। তবে রাজশাহীতে আম চাষের জন্য প্রয়োজনীয় সার, কীটনাশক, বীজ সবকিছুই পর্যাপ্ত পরিমাণে রয়েছে এবং এসব দোকানপাট সব সময় খোলা রাখার আদেশ রয়েছে।

[৭] তিনি জানান, আমের ফলন প্রতিবছরের ন্যায় এবারও কম বেশি ভালোই হবে। কৃষি পন্য পরিবহন সব সময় চালু থাকছে তাই সারাদেশে রপ্তানিতেও সমস্যা তেমন একটা হবেনা বলে তিনি জানান। তবে দেশ ছাড়িয়ে বিদেশে রাজশাহীর অাম যেহেতু রপ্তানি হচ্ছে, এবছর সেই রপ্তানিতে কিছুটা সমস্যা হতে পারে বলে মন্তব্য করেন তিনি। তবে তিনি বলেন, যেহেতু আমের পরিপূর্ণ ফলন হতে এখনো প্রায় দেড় দুই মাসের মতো সময় রয়েছে কাজেই যদি পরিস্থিতি ভালো হয়ে যায় তাহলে রপ্তানিতে পুনরায় স্বস্তি থাকবে বলে অাশা করেন তিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত