প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] পাকিস্তানে দিন দিন বেড়ে চলেছে আত্মহত্যা, হতাশাই অর্ধেক মৃত্যু

ইসমাঈল আযহার: [২] সম্প্রতি গবেষণা অনুযায়ী পাকিস্তানে আত্মহত্যার হার দিন দিন বেড়ে চলেছে। আমরা যদি আত্মহত্যার কারণগুলো খতিয়ে দেখি তবে দেখা যাবে হতাশাই হলো এর মূল কারণ, যা প্রায় প্রতিটি প্রতিটি মানুষের সমস্যা।

[৩] কেন মানুষের মধ্যে এতো হতাশা? এবং এর প্রতিকার কী? এ সম্পর্কে আল্লাহতায়ালা আমাদের কী শিখিয়েছেন? এবং কীভাবে আমরা হতাশা থেকে মুক্তি পেতে পারি?

[৪] আমার কাছে হতাশা হলো ইচ্ছা পূরণ না হওয়ার ফলে জন্ম নেয়া তিক্ত এক অনুভূতির নাম।

[৫] দর্শনের শিক্ষক হিসাবে, আমার দৃষ্টিতে হতাশা এড়াতে আমাদের প্রথমে বাস্তববাদী হতে হবে এবং মন থেকে অবাস্তব বাসনাগুলো দূর করতে হবে।

[৬] ক্ষতির অনুমান করা হলে আকাঙ্ক্ষা বা বাসনার তীব্রতা কমে যাবে। আর তখন আমাদের হতাশাও কমে আসবে। হতাশা এবং আকাঙ্ক্ষা বা বাসনা একটি অপরটির সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। এটি খুব আকর্ষণীয় একটি সূত্র তবে খেয়াল রাখতে হবে আমাদের স্বপ্নের যে মৃত্যু না হয়।

[৭] হশাতা দূর করতে আমাদেরকে ভাগ্যের চেয়ে বেশি প্রত্যাশা করা এবং সময়ের আগে চাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। একজন দার্শনিক বলেছেন, অন্ধকারকে আলোকিত করার চেয়ে প্রদীপ জ্বালানো ভালো। একজন ঠাকুর দার্শনিক বলেছেন, প্রতিটি শিশু এই বার্তা নিয়ে জন্মগ্রহণ করে যে, ঈশ্বর মানুষ থেকে হারাননি, বরং ধৈর্য খারাবি আমাদের চিন্তা-চেতনায়।

সূত্র: ডেইলি পাকিস্তান ডটকমে প্রকাশিত পাকিস্তানের ন্যাশনাল কলেজের দর্শন বিভাগের শিক্ষক আরিম সবা-এর কলাম থেকে অনুবাদকৃত

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত