প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডাক্তার মঈন সম্পর্কে এক ছাত্রের হৃদয়বিদারক ফেসবুক পোস্ট

আবুল বাশার নূরু: স্মৃতি খুব কষ্টের, মঈন স্যারের ইন্টার্ন ছিলাম। ইন্টার্নশিপ শেষ হলে স্যার যে হাসপাতালে চেম্বার করতেন ঐ হাসপাতালে ডিউটি ডক্টর ছিলাম। একদিন রাত ২টায় এক রোগী ভর্তি হলো প্রচণ্ড খিঁচুনি নিয়ে। রিসিভ করেই স্যারকে ফোন দিলাম, স্যার ফোন ধরেই বললেন, ফজলুর আমিতো প্রায় বাসায় চলে আসছি, ম্যানেজ করতে পারবা না? আমি আমতা আমতা করে বললাম, স্যার ডায়াজিপাম দিয়েছি, রোগীটা খারাপ এখনও খিঁচুনি হচ্ছে দেখে গেলে ভালো হত স্যার।

স্যার ওভার ফোনে কি কি করতে হবে কিছুক্ষণ বললেন, তারপর হঠাৎ বলে বসলেন ঠিক আছে ফজলুর তুমি ফোন রাখ আমি আসছি। দশ মিনিটের ভিতরে স্যার চলে আসলেন। এসেই বললেন, যেহেতু ডায়াজিপাম দিয়েছো এখন আমাদের কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে নেক্সট স্টেপে যেতে হবে। স্যার ১৫ মিনিট রোগীর পাশে অপেক্ষা করলেন তারপর বললেন, এখন ফসফেন লোডিং শুরু করো। রোগীটা গরিব ছিল স্যার নিজে থেকে যাবতীয় পরীক্ষার ৫০% কমানোর জন্য ¯িøপে সাইন করলেন। পরে যাওয়ার সময় আমাকে বললেন শোন, পার্টি গরীব, আমার ভিজিট তোলার দরকার নাই, ফ্রি করে দিও আর সকালে পেশেন্ট স্টেবল হলে ওসমানীতে রেফার্ড করে দিও, আজ আমার ইউনিটে ভর্তি আছে, এখানে এরা হসপিটালের বিল দিতে পারবে না- এই ছিলেন আমাদের মঈন স্যার।

আসুন এই ডাক্তারকে আমাদের রাষ্ট্র কি দিয়েছে দেখি, করোনাতে আক্রান্ত হয়ে স্যার শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেন সিলেটে। এক সময় ঢাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্যে স্যার এই রাষ্ট্রের কাছে একটি এয়ার অ্যাম্বুলেন্স চেয়েছিলেন, রাষ্ট্র জানিয়ে দিয়েছে স্যার এয়ার অ্যাম্বুলেন্স পাওয়ার যোগ্যতা রাখেন না। আমারসদা হাস্যজ্জল স্যার তারপর অনুনয় করে রাষ্ট্রের কাছে একটি আইসিউ অ্যাম্বুলেন্স চেয়েছিলেন, রাষ্ট্র কর্ণপাতই করেনি।

অবশেষে স্যার নিজ উদ্যোগে একটি সাধারণ অ্যাম্বুলেন্সে কুর্মিটোলা হাসপাতালে রেফার হলেন এবং আজ সকালে রাষ্ট্রকে সকল দায়ভার থেকে মুক্তি দিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন। না, রাষ্ট্র কিছুই হারায়নি শুধু আমরা চিকিৎসকরা হারিয়েছি এফসিপিএস ও এমডি কমপ্লিট করা মানবিক একজন স্যারকে।

ডা. ফয়জুর রহমানের ফেসবুক পোষ্ট থেকে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত