প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] করোনার করাল থাবার মাঝে বিবর্ণ ভবিষ্যতে চোখ ভারতীয় কৃষকদের

ইমরুল শাহেদ : [২] করোনার মধ্যে উৎপাদিত পণ্য বিক্রি না হওয়ায় চোখেমুখে অন্ধকার দেখছেন ভারতের কৃষকরা। ইয়ন, বিবিসি

[৩] উত্তর প্রদেশের মোরাদাবাদের একজন হলুদ ও গোলাপ ফুল উৎপাদক বলেছেন, করোনাভাইরাস লকডাউনের কারণে বিক্রি করা যাচ্ছে না বলে ফুলগুলো ক্ষেতের মধ্যেই শুকিয়ে যাচ্ছে।

[৪] কর্নাটকের চেহারাও একই। কর্নাটকের শিভামো¹ার একজন কলা উৎপাদক বলেছেন, লকডাউনের মধ্যে তাদের ক্ষেতের ফসল ক্ষেতেই পচে যাচ্ছে।

[৫] বিজয়েন্দ্র নামের একজন কৃষক বলেছেন, ‘স্থানীয় ক্রেতারা কলার দাম কেজি প্রতি বলছেন ৪ বা ৫ রুপি। এটা তো আমাদের জন্য সম্ভব নয়। আমি জানি না কি করব।’
[৬] একইভাবে লকডাউনের কারণে উড়িষ্যার কৃষকরাও উৎপাদিত পণ্য নিয়ে লোকসানের মধ্যে পড়েছেন।

[৭] এস মাদুলি নামের একজন মুটে বলেছেন, ‘প্রত্যেক বিষুবা সংক্রান্তিতে আমরা প্রচুর মাটির জিনিষপত্র বিক্রি করি। কিন্তু এ বছর করোনাভাইরাসের কারণে আমাদের কোনো ক্রেতা নেই। ব্যবসা-বাণিজ্য একেবারে বসে গেছে। সরকারের উচিত আমাদের সহায়তা করা।’

[৮] মহারাষ্ট্রের পশ্চিমাঞ্চলীয় লাসানগাও পেঁয়াজ উৎপাদনের জন্য বিখ্যাত। ভারতের এক তৃতীয়াংশ পেঁয়াজের চাহিদা পূরণ হয় এখান থেকেই। লকডাউনের কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ থাকায় ৪৫০ টন পেঁয়াজ বন্দরে পড়ে আছে। শ্রমিকও নেই পেয়াজ ওঠানো ও নামানোর জন্য।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত