প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জনসমাগম বন্ধ করতে বলায় ম্যাজিস্ট্রেটের ওপর ছাত্রদল নেতার হামলা!

যুগান্তর : [২] রাজশাহীর তানোরে ছাত্রদলের এক সাবেক নেতার বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ আনসার সদস্যদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেকসহ স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা তানোর পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থান নির্ধারণের জন্য গেলে এ ঘটনা ঘটে।

[৩] এ ঘটনায় তানোর উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি উপজেলা সদরের আমশো গ্রামের মৃত আবদুল হামিদ মণ্ডলের ছেলে আবদুল মালেক মণ্ডলকে (৩২) ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।হামলার ঘটনায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেক, তার গাড়িচালক সুজন (৩৫) এবং আনসার সদস্য আল আমিন (২৮) ও রাজিব (৩০) আহত হয়েছেন।তবে তাদের আহতের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন তানোর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুশান্ত কুমার মাহাতো।

[৪] তিনি জানান, তানোর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা ঢাকা, গাজীপুর এবং নারায়ণগঞ্জে কর্মরত আছেন। কয়েকদিন আগে শতাধিক ব্যক্তি এসব এলাকা থেকে তানোরে আসেন। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনের নজর আসলে তানোরের তিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তাদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য নির্বাচিত করা হয়।

[৫] সুশান্ত কুমার মাহাতো জানান, এ কারণে সোমবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেক তানোর পৌর উচ্চ বিদ্যালয় পরিদর্শনে যান। এসময় সেখানে দেড় থেকে দুইশ লোকের সমাগম দেখেন। লোকজনের সমাগম দেখে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেক তাদেরকে ওই এলাকা থেকে সরে যাবার অনুরোধ জানান। এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ আনসার সদস্যদের ওপর হামলা চালায় স্থানীয়রা।

[৬] নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তানোরের স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেক জনসমাগম না করার জন্য অনুরোধ জানায়। এ সময় পার্শ্ববর্তী আমশো গ্রামের বাসিন্দা তানোর উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আবদুল মালেক মণ্ডল তার সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। তারা সেখানে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি ব্যবহার করা যাবে না বলে শ্লোগান দিতে থাকেন।

[৭] নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট স্থানীয়দের বোঝানোর চেষ্টা করলে সাবেক ছাত্রদল সভাপতির নেতৃত্বে স্থানীয়রা হামলা চালান। হামলায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ চারজন আহত হন। তাদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

এ সময় উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আবদুল মালেক মণ্ডলকে আটক করা হয়।

[৮] প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেকের ডান হাতে আঘাত রয়েছে। ঘটনার পর তিনি স্থানীয় একটি ওষুধের দোকানে প্রাথমিক চিকিৎসা নেন। তার ডান হাতে ব্যান্ডেজ রয়েছে। ঘটনার সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেকের গাড়িচালক সুজন এগিয়ে না আসলে তিনি বড় ধরনের হামলার শিকার হতেন।

[৯] এদিকে এ ঘটনার পরে আটককৃত আবদুল মালেক মণ্ডলকে ঘটনাস্থলেই ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে সাজা দেয়া হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেক তাকে সংক্রমণ প্রতিরোধ আইনে ছয়মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দেন।

তবে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল মালেক বলেন, হামলার কোনো ঘটনা ঘটেনি। সেখানে কিছু লোকজন জনসমাগম করেছিলেন। করোনা প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে তাদেরকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় সেখান থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত