প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডাক্তাররা অমায়িক, কৃতজ্ঞ রোগী পেলে শ্রমক্লান্তির পুরোটাই তারা ভুলে যান

গুলজার হোসেন উজ্জ্বল : সকালে আম্মাকে নিয়ে গিয়েছিলাম জাতীয় হৃদরোগ হাসপাতালে। হাসপাতালের সামনে ট্রায়েজ কর্নার। আমি ড্রাইভারকে পাঠালাম টিকিট কাটার জন্য। কাউন্টার থেকে বললো টিকিট পরে, আগে ট্রায়েজ কর্নার থেকে দেখে নিন ফ্লু কিনা। দেখলাম ইমার্জেন্সির পাশে একটা ট্রায়েজ কর্নার। একজন পিপিই পরা নার্স বসা। পাশে ইমার্জেন্সি বিভাগ। সেখানে পিপিই পরে বসা ইমার্জেন্সি মেডিকেল অফিসার। নিজের ডাক্তার পরিচয়টা দিইনি। সাধারণভাবেই রোগীর অবস্থা বর্ণনা করলাম। বললাম ইকো করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এখান থেকে ইকো করাতে এসেছি। ফরমালিটি শেষ করে ইকো রুমে পাঠিয়ে দিলো। সেখানে আমার শ্রদ্ধেয় বড় ভাই হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. দেলোয়ার হোসেন ছিলেন। মহিলা রোগী হওয়ায় দেলোয়ার ভাই ডেকে নিলেন একজন লেডি ডাক্তারকে। ডা. অনন্যা পিপিই পরে ফুল কভার্ড। আম্মার ইকো হলো। আধঘণ্টার ভেতর সব কাজ শেষ করে বাসায় ফিরলাম। আমার মনে হয়েছে এ সময়ে সরকারি হাসপাতালগুলো দারুণভাবেই সেবা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। প্রিয় ঢাকাবাসী, এই সময়ে জরুরি সমস্যা না হলে ঘরে থাকুন। বিভিন্ন হাসপাতাল ও চিকিৎসকেরা ফোনে, ভিডিওতে চিকিৎসা দিচ্ছেন। আর জরুরি হলে সোজা সরকারি হাসপাতালে চলে যান। ভিড়ভাট্টা নেই। একদম সুনসান। দ্রুতই সেবা পাবেন। আরেকটি কথা, সেবা নিয়ে ডাক্তারদের ধন্যবাদ দিতেও ভুলবেন না। মনে রাখবেন আপনারা অমায়িক ডাক্তার পেলে অসুখের কথা অর্ধেক ভুলে যান। আর ডাক্তাররা অমায়িক, কৃতজ্ঞ রোগী পেলে তার শ্রমক্লান্তির পুরোটাই ভুলে যায়। প্রিয় দেলোয়ার ভাই, থ্যাংকস আ লট। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত