প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] যক্ষার প্রতিষেধক বিসিজি টিকা বাঁচাতে পারে করোনাভাইরাস থেকে

মাজহারুল ইসলাম : [২] বিশ্বে বিভিন্ন দেশ থেকে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি কলেজ অফ অস্টিওপ্যাথিক মেডিসিনের এক গবেষণায় এমনটি জানানো হয়েছে। এই বিসিজি বা ব্যাসিলাস ক্যালমেট-গুউরিন টিকা শৈশবে দেয়া হয়ে থাকে। ইত্তেফাক, সময়টিভি, জাগোনিউজ

[৩] এ বিষয়ে নিউ ইয়র্কের ওই ইন্সটিটিউটের পক্ষ থেকে বলা হয়, পৃথিবীর যেসব দেশে বিসিজি টিকাদান কর্মসূচি নেই যেমন ইতালি, নেদারল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্রের মানুষের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তবে দীর্ঘস্থায়ী টিকাদান কর্মসূচি যেসব দেশে চালু আছে ওইসব দেশের মানুষের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা কম।

[৪] ওই গবেষণায় দাবি করা হয়, বিসিজি টিকা আসার পর থেকে বিশ্বে মৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেছে। উদাহরণ স্বরূপ বলা হয়, মৃত্যুর হার বেশি হওয়ায় ১৯৮৪ সালে বিসিজি কার্যক্রম শুরু করে ইরান। দেশটিতে বিসজি টিকা দেয়া মানুষের মধ্যে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি তেমন একটা পাওয়া যায়নি। এছাড়া ইউরোপ এবং যুক্তরাষ্ট্রে বিসিজি টিকা না দেয়ার কারণে চীন এবং ভারতের চেয়ে করোনায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে গবেষণায় দাবি কর হয়। কারণ চীন এবং ভারতে বহুকাল ধরে বিসিজি টিকার প্রচলন রয়েছে।

[৫] আর এমন দাবির সঙ্গে মিলে যাচ্ছে বর্তমান পরিস্থিতিও । চীন থেকে করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি হলেও এ ভাইরাসে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে ইতালিতে। আর সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে।

[৬] করোনার চিকিৎসায় অস্ট্রেলিয়ায় গবেষকরাও য²ারোগ টিউবারকিউলোসিস (টিবি) চিকিৎসায় ব্যবহৃত ভ্যাকসিন নিয়ে গবেষণা করছেন। এটি করোনা প্রতিরোধ করবে কি-না, তা নিশ্চিত হতে ৪ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীর ওপর এটি প্রয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। অস্ট্রেলিয়ার মেলবর্নের মুরডক চিলড্রেনস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর ক্যাথরিন নর্থ এসি বলেছেন, ওই ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ও ফ্রন্টলাইনে থাকা স্বাস্থ্যকর্মীদের জীবন বাঁচাবে।

[৭] জানা যায়, যক্ষা প্রতিষেধক হিসেবে প্রতি বছর বিশ্বের প্রায় ১৩০ মিলিয়ন শিশুকে দেয়া হচ্ছে এই বিসিজি ভ্যাকসিন। তবে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের ক্ষেত্রে এটি কতটুকু কার্যকর সে ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত নন বিজ্ঞানীরা। তবে গবেষণায় দেখা যায়, বয়স্ক (৬০-৭৫ বছর) ব্যক্তিরা বিসিজি ভ্যাকসিন নেয়ার পর ৮০ শতাংশ রোগীর শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ কমে গেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত