প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মানবিক অজুহাতে মাদক পাচার, সতর্কাবস্থায় র‌্যাব-পুলিশ

ইসমাঈল হুসাইন ইমু : [২] করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারি ছুটি চলছে। বন্ধ রয়েছে যান চলাচল। রাস্তায় মানুষের চলাচলও সীমিত। এ সুযোগটি কাজে লাগাচ্ছে মাদক কারবারিরা। যাদিও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ছুটি এবং মানুষের চলাফেরা নিয়ন্ত্রণে থাকায় অপরাধ আগের চেয়ে কমেছে।

[৩] র‌্যাব-২ কোম্পানি কমান্ডার ও পুলিশ সুপার মহিউদ্দীন ফারুকী সাংবাদিকদের বলেন, রাস্তা ফাঁকা থাকার সুযোগ নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা গাড়িতে করে মাদকের চালান এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিচ্ছে যাচ্ছে। সন্দেহজনক গতিবিধি দেখলে চেকপোস্ট জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এক্ষেত্রে তারা মানবিক কোনো বিষয় তুলে আনে। তবে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে গত রোববার রাজধানীর তিন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ছয় মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

[৪] গত শনিবার রাতে রাজধানীর গ্রিণরোড এলাকায় একটি বাসায় গ্রীল কেটে স্বার্ণালঙ্কার চুরি করে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পুলিশ বলছে, এ ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনতে তারা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এর আগে গত ২২ মার্চ রাজধানীর তেজগাঁও থানা এলাকায় একটি বাসায় ল্যাপটপ চুরির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এক চোর গ্রেপ্তার করার পর তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাজধানীর একটি মল থেকে থেকে আরো চারজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সে সময় ৯৩ টি চোরাই ল্যাপটপ উদ্ধার করে তেঁজগাও থানা পুলিশ।

[৫] ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক জিয়া রহমান বলেন, ছোট অপরাধ করে যারা জীবিকা নির্বাহ করে তারা এখন বিকল্প পথ হিসেবে বাসাবাড়িতে হানা দেবে। কারণ সময়ের সঙ্গে অপরাধ ও এর ধরন পরিবর্তন হয়।

[৬] ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, বাসা একেবারে ফাঁকা থাকলে চুরি ডাকাতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তবে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মানুষকে সচেতন করার পাশাপাশি অপরাধ নিয়ন্ত্রণে সতর্কাবস্থায় রয়েছে।

[৭] ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, মানুষের চলাফেরা নিয়ন্ত্রণে থাকায় অপরাধ সংঘটিত হওয়ার আশঙ্কা কম। তবুও প্রতিটি থানাকে সতর্ক দৃষ্টি রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত