প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ‘এমন কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চাইনি,’ ক্ষমা চাইলেন মোদি

মুসফিরাহ হাবীব: [২] করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে ভারতজুড়ে তিন সপ্তাহের লকডাউনের ঘোষণাকে কঠোর পদক্ষেপ হিসাবেই মন কি বাতে বর্ণনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এর জন্য ক্ষমাও চাইলেন তিনি। বললেন, ‘আমি জানি এই লকডাউনের ফলে মানুষের অনেক সমস্যা-দুর্ভোগ হচ্ছে। তার জন্য আমি দেশবাসীর কাছে ক্ষমাপ্রার্থী।’

[৩] তবে লকডাউনের প্রয়োজনীয় কেন, সে ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেছেন, ‘রোগের নিয়মই হল শুরুতেই প্রতিরোধ করা। সেই কারণেই লকডাউন ঘোষণা হয়েছে। সবাই সেটা মেনে চলুন। ঘরে থাকুন, সুস্থ থাকুন’। তিনি এ দিন দেশবাসীকে আশ্বস্ত করে বলেছেন, ‘করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে জিতবই আমরা।’ একই সঙ্গে সতর্কতার বার্তা দিয়ে তিনি বলেছেন, ‘লকডাউন অমান্য করা মানে জীবন নিয়ে খেলা। লকডাউন ভাঙলে করোনা থেকে বাঁচা মুশকিল।” অসুবিধা সত্ত্বেও প্রত্যেক দেশবাসীকে লকডাউন মেনে চলার আবেদন জানান মোদি।

[৪] করোনাভাইরাস থেকে বেঁচে ফেরা সুস্থ বেশ কয়েক জনের সঙ্গেও এদিন কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এরকমই একজন রামাগামাপা তেজা। তিনি প্রধানমন্ত্রীকে জানান, প্রথমদিকে তিনি ভীত ছিলেন। পরে হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্সদের সহয়তায় মনের জোর বাড়িয়েছেন। জানান, হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরও নিয়ম মেনে হাত পরিস্কার করেন তিনি। আগ্রার অশোক কাপুরের পুরো পরিবারই করোনা আক্রান্ত হয়েছিল। বর্তমানে সবাই সুস্থ।

[৫] এই পরিস্থিতি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত মানুষজন তাদের কারো কারো সঙ্গেও এদিন কথা বলেছেন মোদি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘চিকিৎসকদের আত্মত্যাগ আমাকে প্রাচীন হিন্দু প্রবাদ মনে করিয়ে দেয় বারবার। যেখানে বলে হয়েছে, ‘আর্থিক স্বার্থ ব্যতীত রোগীদের সেবা যেসব চিকিৎসক করেন তারাই হলেন প্রকৃত ডাক্তার।’ এদিন নিকাশী কর্মী সহ অত্যাবশ্যকীয় পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত কর্মীদেরও বাহবা দেন মোদি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত