প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পিপিই মানেই স্পেসস্যুটের মতো দেখতে পোশাক নয়, সাধারণ মানুষের জন্য মাস্ক হলো পিপিই

আব্দুন নূর তুষার : করোনাভাইরাস থেকে বাঁচার জন্য চাই নিরাপত্তা। সেই নিরাপত্তা চিকিৎসকের ও স্বাস্থ্যকর্মীর জন্য প্রথম দরকার। পিপিই মানেই স্পেসস্যুটের মতো দেখতে পোশাক নয়। সাধারণ মানুষের জন্য মাস্ক হলো পিপিই। পুলিশের জন্য গ্লাভস ও মাস্ক হলো পিপিই। ডাক্তারদের, নার্সদের জন্যও একেক বিভাগে ও ধাপে একেক রকম পিপিই আছে। তবে তাদের জন্যই চাই সবচেয়ে বেশি সুরক্ষা। স্পেসস্যুটের মতো জিনিসটা তাদের জন্যই বেশি দরকার। কেন বললাম এ কথা? ফেসবুকে দেখা ছবিগুলো যদি সত্য হয় তবে দেখলাম ব্যাংক ম্যানেজার, ভূমি অফিসার, এমনকি জেলা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা পিপিই পরে ছবি পোস্ট করেছেন। যেন এটা বিয়েবাড়ির শেরওয়ানি, ঈদের নতুন পাঞ্জাবি। পরে পরে ছবি দাও। তারা কী আশা করছেন? করোনাভাইরাসে সবাইকে যেখানে বাসায় থাকতে বলেছেন সেখানে হাঁচি, কাশি, জ্বরে আক্রান্ত রোগী পে-অর্ডার করাতে ম্যানেজারের রুমে আসবেন? ভূমি অফিসে কোটি কোটি টাকার ভূমি বিষয়ক কাজকর্ম হবে? তারা কী আশা করছেন ডিসি সাহেবের কাছে করোনা রোগীরা এসে মুখের উপর হাঁচি-কাশি দেবেন? আর ফেসবুকে স্পেসস্যুটের মতো দেখতে পিপিই পরা নিজেদের ছবি দিয়ে তারা কী প্রমাণ করছেন?এই জিনিস তার দরকার যিনি রোগীকে ধরবেন, রোগীর হাঁচি, কাশি, লালা দিয়ে আক্রান্ত হবেন। রোগীকে ইনজেকশন দেবেন, রোগীর বর্জ্য পরিষ্কার করবেন। তিনি বা তারা রক্ষিত থাকলেন আর হাসপাতালে ডাক্তার রেইনকোট পরে রোগী দেখলো। দেখে অসুস্থ হয়ে পড়লো। তখন কী হবে? তখন তিনি বা তার কোনো প্রিয়জনের যখন করোনা ইনফেকশন হবে, তখন তিনি কি হাসপাতালে গিয়ে ডাক্তার পাবেন? আমরা খুব ভাগ্যবান। এমন একটা সময়ে বেঁচে আছি যে সময়টাতে এমন কিছু দেখছি যেটা অনেকেই দেখতে পায়নি বা পাবে না। একজন বলেন তো পৃথিবীর আর কোন দেশে রোগীর চিকিৎসার সঙ্গে বা রোগীর পরিবহনের সঙ্গে যাদের সম্পর্ক নেই তারা কারণ ছাড়াই এই ধরনের ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন? আমরাই প্রথম যে দেশে ব্যাংক ম্যানেজার পিপিই পরে টাকা গোনে। হায়! অবিমৃষ্যকারিতা, অযোগ্যতা ও অবিবেচনার জন্য আরেকবার গিনেসবুকে নাম উঠানোর দাবিটা আমরা পাকাপোক্ত করে ফেললাম। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত