প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কারের চূড়ান্ত পর্যায়ে ইরান (ভিডিও)

টিভিএনএ প্রতিবেদন : বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মাঝে ইরান অন্যতম। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি দেশটিতে প্রথম এই ভাইরাসের সংক্রমণের খবর পাওয়া যায়। এরপর থেকে আক্রান্ত ও মৃত্যের সংখ্যা বাড়তে থাকে। প্রথমদিকে ইরান সরকার ও জনগণের মাঝে এর প্রাদুর্ভাব সম্পর্কে খুব বেশি সচেতনতা লক্ষ্য করা যায়নি। তবে সময়ের সাথে সাথে সচেতনতা বেড়েছে এবং তা নিয়ন্ত্রণও করতে সক্ষম হচ্ছে।

ইরান দীর্ঘদিন যাবৎ আমেরিকার কঠোর অবরোধের মাঝে আছে। এঅবস্থায় দেশটি কিভাবে এই ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে, আর চিকিৎসার ক্ষেত্রেই বা কি কি পদক্ষেপ নিয়েছে সে বিষয়ে আমাদের সাথে কথা বলেছেন রেডিও তেহরান বাংলা বিভাগের সিনিয়র সাংবাদিক ড. সোহেল আহম্মেদ।

তিনি জানান, ইরানি জনগণ এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকে বৈষ্ঞিক মহামারি হিসেবেই দেখছে। তবে দেশের অনেক জনগণ মনে করেন এটি মার্কিন ও তার মিত্র সাম্রাজ্যবাদীদের জীবাণু আক্রমণও হতে পারে। তবে সেসব আলোচনা সমালোচনাকে পেছনে ফেলে এখন ভাইরাসটিকে মোবাকিলা করার ক্ষেত্রেই সবাই মনোযোগ দিয়েছে।যদিও প্রথমদিকে ইরানিরা বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে দেখেনি। তবে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে তাদের মাঝে সচেতনতাও বেড়েছে।

ড. সোহেল আহম্মেদ বলেন, ভাইরাসটি মোকাবিলায় সরকার প্রথমেই একটি জাতীয় কমিটি গঠন করে। যার সদস্য সেনাবাহিনী প্রধানসহ উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা রয়েছেন। এর সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। এই কমিটির সুপারিশেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ, যেকোনো খেলার আয়োজন বন্ধ ও চিকিৎসা সহ নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার।

তিনি বলেন, ইরানের সশস্ত্র বাহিনী করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকারকে সর্বাত্বক সহযোগিতা করে যাচ্ছে। সনাবাহিনী, সিটি করপোরেশন ও বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়ে দেশের রেলযোগাযোগ, বাস-ট্রাক, বিভিন্ন স্থাপনা ধোয়া মোছার কাজ করা হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, করোনা মোকাবিলায় ইরানের জাতীয় পরিকল্পনা বাস্তবায়ন কমিটির আওতায় ইরানের প্রতিটি পরিবারের সাথে যোগাযোগের যে উদ্যোগ সরকার নিয়েছে তা সবচেয়ে কার্যকরী বলে দাবি করছে সরকার। কারণ এই যোগাযোগের মাধ্যমে সরকারের সাথে প্রতিটি পরিবার তার অবস্থা জানাতে পারছে আর সরকারও দ্রুত ব্যবস্থা নিতে পারছে।

ইরান এরইমধ্যে টেস্টকিট আবিষ্কার সহ কয়েকটি ওষুধও তৈরি করেছে বলে জানিয়েছে। এসম্পর্কে সোহেল আহম্মেদ বলেন, টেস্টকিট আবিষ্কারের ফলে এখন আর ইরানকে বাইরে থেকে তা কিনতে হচ্ছে না। এছাড়া যে চারটি ওষুধ আবিষ্কারের কথা বলা হচ্ছে তা পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ শুরু হয়েছে। আর ইরান সরকার জানিয়েছে যে, তারা করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কারের শেষ প্রান্তে আছে। খুব শিগগির তা ঘোষণা করা হবে।

সর্বাধিক পঠিত