প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এক ভাইরাস একশ দশের ওপরে দেশের অর্থনীতির বারোটা বাজাচ্ছে

 

নূরী জাহানারা: ট্রাম্প আঁতকা ইউরোপিয়ানদের আমেরিকা ভ্রমণ রদ করেছেন। নেদারল্যান্ডসের জাতীয় পত্রিকা ডাটা বের করে প্রমাণ দিলো সংক্রমিত আমেরিকানদের মধ্যে একজনও নেই যিনি কিনা ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে সংক্রমিত হয়েছেন। আপনারা বলতে পারেন জাস্টিন ট্রুডোর স্ত্রী সংক্রমিত হয়েছেন যুক্তরাজ্য থেকে। প্রতি প্রশ্ন যুক্তরাজ্য কি ইউনিয়নে? ওয়েল ট্রুডোর কানাডাও ইউএসে নয়। আপাতত এই থাকুক। বাংলাদেশে কোন্ এক মন্ত্রী নাকি বলেছেন, এই রোগ তার কয়েকবারই হয়েছে। …গুলোকেই কেন আমরা মন্ত্রিত্ব দিয়ে থাকি? আবার শুনলাম কয়েকশ তাদের পরিবারের সঙ্গে মিলিত হতে চীনের ভাইরাস অধ্যুষিত অঞ্চল উহান থেকে বাড়ি গেছে। নিজের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে সে গেছে বাংলাদেশে, যেখানে কোনো ট্রিটমেন্ট পাওয়া দূর অস্ত। স্ত্রী-সন্তান ভুগবে না। দেশের মানুষ ভুগবে না সে একা ভুগবে, তা কি হয়? তাদের বিবেচনাহীন মগজকে কী বলা যায়? মগজ না গোবর। করোনা থেকে পরিবার ও দেশ বাঁচাতে যা করা দরকার তা না করে উল্টা তার পরিবারপ্রীতি বেড়ে গেলো। ইউরোপেও তারা বউকে ত্যানার পুটলি, বাচ্চাদানি করে রাখে আর নিজে বিজ্ঞান পড়ে।

এক নতুন ভাইরাস একশ দশের উপরে দেশের অর্থনীতির বারোটা বাজাচ্ছে। একদিন কাজ বন্ধ রাখলে ইউরোপের খবর হয়ে যায়। সেই ইউরোপ এখন করোনার এপি সেন্টার। সাহসের সঙ্গে মোকাবেলা করছে দেশগুলো ও তার মানুষেরা। একইসঙ্গে নানা ধর্মের নানা সংস্কৃতির শরণাগত মানুষকে একটি মানুষের জীবনে বাঁচতে দিয়েছে তারা। স্বাধীনতাপ্রিয় ইউরোপ সত্যিই দেখার মতো একটি অঞ্চল। আর সেখানে গেলে সবার সুইডেনকে দেখতে যাওয়া উচিত। আমার শহরে করোনা এসেছে। সারাজীবনই এটা কোরো না ওটা কোরোনার মধ্যেই কাটিয়েছি। আমার শহরের প্রশাসনের মানুষগুলো ভালো মানুষ। ভদ্র অহিংস মানুষ। পৃথিবীর মানুষ অসাধারণ এক প্রাণ। জীবন কতো সুন্দর। তারা শহরগুলো জীবনটাকে কতো মনের মাধুরী দিয়ে সাজিয়ে রাখতে চায়। সবাই নিরাপদে, সুস্বাস্থ্য নিয়ে প্রিয়জনের সঙ্গে থাকুন। আপনার প্রতিবেশীর খবর নিন। জগতের মঙ্গল হোক। ফেসবুক থেকে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত