প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বেস্ট এইডের মাধ্যমে প্রথমবারের মত ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবায় পথ চলা শুরু করলো বাংলাদেশ

ইয়াসিন আরাফাত : বিশ্বের অন্যান্য দেশে সেবাটি প্রচুর জনপ্রিয় হলেও বাংলাদেশে প্রথমবারের মত এই ডিজিটাল সেবা নিয়ে এসেছে ষ্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের চার তরুণ উদ্দোক্তা।তাদের চেষ্টায় বেষ্ট এইড থেকে স্বাস্থ্যসেবা নিচ্ছে ঢাকা এবং ঢাকার বাইরের জনগণ। সেবামূলক প্রতিষ্ঠানটি মুলত ঢাকার বাইরের সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের সেবার উদ্যেশ্য নিয়েই যাত্রা শুরু করেছে। যারা সঠিক সময়ে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ থেকে বঞ্চিত। তাছাড়া হিজরা সম্প্রদায় ও পার্বত্য অঞ্চলের মানুষদের জন্য প্রতিষ্ঠানটি সম্পুর্ণ ফ্রি সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

বেষ্ট এইড কিভাবে কাজ করছে জানতে চেয়ে প্রতিষ্ঠানটির এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর সাদেকুল ইসলাম শাওন জানান, বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবায় ডিজিটাল প্লাটফর্ম এই বেষ্ট এইড। প্রতিষ্ঠানটি মুলত অনলাইনে (স্কাইপে) বাংলাদেশ এবং ভারতের বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কনসালটেন্সি দিয়ে থাকে। কোন রোগী যদি প্রাথমিক ভাবে কোন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ নিতে চান তাহলে আমাদের দেয়া হটলাইন +৮৮০১৫৩৩৪৪৩১১৮ নাম্বারে ফোন দিয়ে জানাবে। পরে আমাদের এখান থেকে কোন একজন ডাক্তার রোগীকে ফোন দিয়ে তার পুরো সমস্যা শুনবেন। তিনি যদি কোন সমাধান দিয়ে দিতে পারেন তাহলে রোগীকে টাকা খরচ করে আর বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সাথে পরামর্শ নিতে হবে না। আর যদি জুনিয়র ডাক্তার মনে করেন তার সমস্যাটি নিয়ে সিনিয়র ডাক্তারদের সাথে কনসালটেন্সি করা প্রয়োজন তাহলে তিনি সিনিয়র ডাক্তারের কনসালটেন্সি সময় টা রোগীকে জানিয়ে দিবেন। পরবর্তীতে রোগী এবং ডাক্তার নির্দিষ্ট অনলাইনে থাকবেন এবং রোগী সঠিক পরামর্শ নিবেন। কনসালটেন্সি শেষ হবার পর কনসালটেন্সি প্রেস্ক্রিপশন আকারে রোগীর মোবাইলে কিংবা মেইলে পাঠিয়ে দেয়া হবে। বিশেষজ্ঞ ডাক্তার যদি কোন পরীক্ষা করাতে পরামর্শ দেন তাহলে রোগী তার নিকটতম যেকোন ডায়গনষ্টিক সেন্টার থেকে পরীক্ষা করিয়ে আমাদের মাধ্যমে ডাক্তারকে দেখাতে পারবেন এবং তৎক্ষনাৎ পরামর্শ পেয়ে যাবেন।

পরবর্তীতে রোগীর নিয়মিত ফলোআপ করবেন আমাদের ডাক্তারগন। যাতে করে রোগী সঠিক সেবা পেয়ে সুস্থ থাকতে পারেন। আবার ডাক্তার যদি মনে করেন এই রোগীকে সরাসরি দেখার প্রয়োজন রয়েছে তাহলে আমাদের অফিসে নির্দিষ্ট সময়ে ডাক্তার এবং রোগী দুইজনই এসে প্রাইভেট কনসালটেন্সি নিয়ে চলে যেতে পারবেন। এই পুরো সেবাটিই রোগীরা পাচ্ছেন মাত্র ৫৯৯ টাকায়। যদিও ভারতের প্রফেসর ডাক্তারের সাথে কনসালটেন্সি ফি ১৫০০ টাকা।

সেবামূলক প্রতিষ্ঠানটিতে এখন পর্যন্ত ঢাকা মেডিকেল কলেজ, পি জি, মা ও শিশু ইন্সটিটিউট, জাতীয় মানষিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউট, পাবনা মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউট, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ এর প্রায় ১০জন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার ডিজিটাল প্লাটফর্মে স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়াও ভারতীয় ৮জন ডাক্তার এই প্রতিষ্ঠান টি তে যুক্ত রয়েছেন। তাছাড়া ঢাকার ৬টি মেডিকেল কলেজের ১৩জন ইন্টার্নশিপ ডাক্তার তাদের সাথে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবায় পরিবর্তন আনার জন্য।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত