প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কৃষকের আগ্রহ বাড়ছে, রংপুরের পীরগঞ্জে শুরু হয়েছে সূর্যমুখীর চাষ

তন্নীমা আক্তার : বাজারে ব্যাপক চাহিদা সূর্যমুখীর, লাভও অনেক বেশি। আর ৯০ থেকে ১১০ দিনের মধ্যে ফসল তোলা যায়। তাই দিনদিনই এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে। বাসস

পীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সাদেকুজ্জামান সরকার জানান, এর আগে এই উপজেলায় সূর্যমুখীর চাষ হতো না। সরকারের প্রণোদনা ও উৎসাহে উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নে প্রায় ৫০ একর জমিতে ১৫০ জন কৃষক সূর্যমুখীর চাষ করেছে।

কৃষকরা জানান, সর্বনিম্ন ২৫ শতক থেকে সর্বোচ্চ ১ বিঘা জমিতে সূর্যমুখী ফসল চাষ করেছেন তারা।

রংপুর জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. সরওয়ারুল হক জানান, সূর্যমুখী একটি উচ্চমূল্যের বাণিজ্যিক তেলজাতীয় ফসল। তাই কৃষি বিভাগ কৃষকদের উৎসাহিত করে যাচ্ছে।

রংপুর অঞ্চলের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মোহাম্মদ আলী জানান, সূর্যমুখী থেকে উচ্চমানের ভোজ্যতেল তৈরি হয়। ফলন বাড়লে দেশের প্রচুর পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হবে।

স্থানীয় এমপি ও জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী জানান, এই বছর উপজেলার ৪ হাজার ৮২০ জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে ভুট্টা, সুর্যমুখী, গম, সরিষা, মুগ ও পেঁয়াজের বীজ এবং রাসায়নিক সার বিনামুল্যে বিতরণ করা হয়েছে। এর ফলে পীরগঞ্জে পানি সাশ্রয়ী ফসল চাষে সম্প্রসারণ হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত