প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বায়ুদূষণের কারণে বছরে মারা যাচ্ছে ১ লাখ ২২ হাজার মানুষ

জেবা আফরোজ: সম্প্রতি প্রকাশিত ‘বৈশ্বিক বায়ু পরিস্থিতি-২০১৭’ প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৯৯০ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে বিশ্বে বায়ুদূষণ সবচেয়ে বেশি বেড়েছে ভারত ও বাংলাদেশে। বায়ুদূষণের কারণে শিশুমৃত্যুর হারের দিক থেকে পাকিস্তানের পরে বাংলাদেশের অবস্থান। বার্তা ২৪

দূষণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির ঝুঁকিতে রয়েছে বাংলাদেশ। বায়ুতে যেসব ক্ষতিকর উপাদান রয়েছে তার মধ্যে মানবদেহের জন্য সবচেয়ে মারাত্মক উপাদান হচ্ছে পিএম ২ দশমিক ৫। এতোদিন এই উপাদান সবচেয়ে বেশি নির্গত করত চীন। গত দুই বছরে চীনকে টপকে দূষণকারী স্থানটি দখল করে নিয়েছে ভারত। চীন ও ভারতের পরে রয়েছে বাংলাদেশ।

রাজধানী ঢাকা দূষিত বাতাসের শহরের র‌্যাকিংয়ে বর্তমানে নিয়মিত উপরের স্থানে থাকছে। এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সে (একিউআই) গত এক সপ্তাহ ধরে বায়ু দূষণে ঢাকা প্রথম থেকে সপ্তম স্থান অধিকার করছে।
সবুজ আন্দোলন পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান বাপ্পি সরদার বলেন, দূষিত বায়ুর কারণে ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হয়। দূষিতবায়ু থেকে ক্যান্সার হতে পারে, যা মানুষকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়।

তিনি আরো বলেন, আমাদের দেশের ইটভাটার দূষিত বায়ু থেকে নাইট্রোজেন, অক্সাইড ও সালফার-ডাই অক্সাইড অ্যাজমা, হাঁপানি, অ্যালার্জি সমস্যা, নিউমোনিয়া ও শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ আরও বাড়িয়ে দেয়। ধূলিকণার মাধ্যমে ফুসফুসের স্লিকোসিস নামে রোগ সৃষ্টি হয়, যা ফুসফুসকে শক্ত করে দেয়। কার্বন-মনো-অক্সাইড রক্তের সঙ্গে মিশে অক্সিজেন পরিবহনের ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। মানুষের অকাল মৃত্যুর কারণ হয়ে পড়ে বায়ু দূষণ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত