প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভাবছেন কানাডা তো টাকাচোর-ব্যাংকডাকাতে ভরে গেলো, ভাইরে এটা কেবল কানাডার বিষয় নয়, এ কাহিনি অন্য দেশেও আছে

 

মঞ্জুরে খোদা টরিক : ভাবছেন কানাডা তো টাকাচোর-ব্যাংকডাকাতে ভরে গেলো। ভাইরে এটা কেবল কানাডার বিষয় নয়। এ কাহিনি অন্য দেশেও আছে। সে চোরদের গল্প আপনাদের কল্পনাকেও হার মানাবে। বাংলাদেশের টাকা কোথায় যায়, তার অনুসন্ধানে সরকারি সংস্থাগুলো বলছে প্রধানত ১০টি দেশে এই টাকা যাচ্ছে যেগুলো হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, সিঙ্গাপুর, হংকং, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মালয়েশিয়া, কেইম্যান আইল্যান্ডস ও ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডস। সে হিসেবে কানাডার নাম আছে ৩ নম্বরে। কিন্তু কেন তাহলে বারবার কানাডার নাম আসছে? নাম আসছে কারণ কানাডার অভিবাসিরা তাদের সামাজিক দায় থেকে লুটেরাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে, সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলেছে এবং লুটেরাদের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক কর্মসূচি রেখেছে। কমিউনিটির মধ্যে তোলপাড় সৃষ্টি করতে পেরেছে। লুটেরাদের সামাজিকভাবে ঘৃণা, বর্জন, অসহযোগিতার নীতি গ্রহণ করেছে এবং তা ক্রমশ দৃশ্যমান হচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে দুদক, গোয়েন্দা সংস্থা, সাংবাদিকরা এসব তথ্য সংগ্রহ করে প্রকাশ করছে। মনে করিয়েন না কাজগুলো খুব সহজে হচ্ছে। কানাডা থেকে এসব তথ্য সংগ্রহ করা কোনো সাধারণ বিষয় নয়। এখানে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের তথ্য অধিকার আইন অত্যন্ত শক্ত। কোনো আইনি, জনস্বার্থ ও নিরাপত্তার প্রশ্ন ব্যতিরেকে আপনি কারও ফোন নম্বর, বয়সও জানতে পারবেন না। তাহলে বুঝতে হবে এসব তথ্য কানাডার সরকার ও সংস্থার সহযোগিতা ছাড়া পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। বিবেকের তাড়নায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কিছু মানুষ লুটেরাদের সম্পদ পাচার ও অপকর্মের তথ্যগুলো গণমাধ্যমে নিয়ে আসছে। আর সে কারণেই আপনারা জানতে পারছেন, বিশ্ববাসী জানতে পারছে। ঝুঁকিপূর্ণ বললাম এ কারণে যে সর্বত্রই অপরাধী চক্র আছে। লুটেরাচক্রের প্রতিহিংসার শিকার এখানেই কেউ হতে পারে। তবে এখানে আইনের শাসন আছে, বিচার আছে। অপরাধ করে টাকা দিয়ে, ক্ষমতা দিয়ে পার পাওয়ার সুযোগ নেই। জামিনে জেল থেকে বেনাপল পারের সুযোগ নেই। ক্ষমতার জোরে, কলমের খোঁচায় শাস্তি মওকুফের কোনো ব্যবস্থা নেই।

কানাডা প্রবাসীরা কেবল সমাবেশ ও মানববন্ধন করেই তাদের দায়িত্ব শেষ করেনি। এ আন্দোলনের মাধ্যমে লুটেরাদের নামে-বেনামে কোথায় কী আছে সে তথ্য জানাতে, তদন্ত করতে দুদককে মাঠে নামিয়েছে। যে কারণে আপনারা দেশের সম্পদ লুটপাট ও পাচারের নানা কাহিনি জানতে পারছেন। আমরা আমাদের সংগ্রাম জারি রেখেছি। অন্য দেশের নাগরিকদেরও এ দায়িত্ব পালন করতে হবে। তাদেরও লুটেরা বিরোধী সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে এবং লুটেরাদের দুনিয়াকে ছোট করে ফেলতে হবে। কয়েদখানার সমান করে ফেলতে হবে তাদের দুনিয়া। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত