প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ক্লাস বিভাজন আরও প্রকট হবে

কামরুল হাসান মামুন : ‘কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষায় সম্মত ঢাবি-রাবি-জাবি-চবি-বুয়েট’! এটা একটা ফরংধংঃৎড়ঁং সিদ্ধান্ত হতে যাচ্ছে। অনেক কারণ আছে। বিস্তারিত অন্য একদিন বলবো তবে সহজ দুয়েকটা কথা না বলে পারছি না। এতো বড় একটি সিদ্ধান্ত এতো তড়িঘড়ি করে নেওয়া কি ঠিক? আমাদের ভিসিরা কি সত্যি ছাত্রদের কথা ভেবে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন নাকি উপরের মানুষকে খুশি করতে রাজি হয়েছেন? সিদ্ধান্তটা যদি শিক্ষকরা অনেক চিন্তাভাবনা করে নিচ থেকে আলোচনা করে উপরে যেতো তাহলে একরকম হতো। এখন সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়ার মতো হয়ে গিয়েছে। মহামান্য রাষ্ট্রপতি সাধারণ দৃষ্টিতে কেবল ছাত্রদের আপাত কষ্টের বিষয়টি দেখেছেন। আমরা যারা শিক্ষক আমাদের তো আরও তলিয়ে ভাবা উচিত। ১. একজন ছাত্র এখন একটি ভর্তি পরীক্ষা দেবে। ওই দিন কোনো কারণে শরীর খারাপ থাকলে বা অন্য কোনো কারণে কেন্দ্রীয় পরীক্ষা দিতে না পারলে ওই ছাত্রের ভবিষ্যৎ কী?
২. অভিন্ন বা সমন্বিত নামটি আপাত তো সুন্দরই লাগুক না কেন এবং ছাত্রদের দুঃখ দুর্দশা লাঘবের একটি বহিরাবরণ থাকুক না কে এর ভেতরে ছাত্রদের দঃখ-কষ্ট বরং আরও বাড়বে যেকোনো কারণেই হোক ওই একটি পরীক্ষা কোনো কারণে খারাপ হলে ওই ছাত্রের ভবিষ্যৎ কী? প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে আলাদা ভর্তি পরীক্ষা তার অপশন থাকে। ৩. এতো বড় কলেবরে পরীক্ষা নেওয়ার মতো সক্ষমতা কি আমাদের আছে? এর নিয়ন্ত্রণে কে থাকবে? বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন শিক্ষকদের কার কী রোল থাকবে। কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের কতোজন এর সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকবে? ৪. প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে এবং ফাঁস হলে এর ক্ষতিটা হবে ব্যাপক। ৫. ইউজিসি হলো দুর্নীতির আঁতুড়ঘর। মনে আছে মেডিকেল প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে ইউজিসির কর্মকর্তারা জড়িত ছিলো? ইউজিসির সদস্যদের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগে স্বজনপ্রীতি ও দুর্নীতির খবর মাঝে মধ্যেই পাই। তাদের হাতে তদারকির ক্ষমতা গেলে সর্বনাশের মাথায় বাড়ি। ৬. সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ক্লাস বিভাজন আরও প্রকট হবে। অলিখিতভাবেই ছাত্রদের প্রথম পছন্দের জায়গা, দ্বিতীয় পছন্দের জায়গা ইত্যাদির একটি ক্রম তৈরি হয়ে যাবে এবং এর ফলে সমাজে এর একটি নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। ৭. কিছু দিন আগে সরকার এবং ইউজিসি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপর অভিন্ন শিক্ষক নিয়োগ এবং প্রমোশন নীতিমালা চাপিয়ে দিতে চেয়েছিলো। সেটা আমরা আন্দোলনের মুখে থামাতে সক্ষম হয়েছি। ওখানে ব্যর্থ হয়ে এবার নিয়ে এসেছে অভিন্ন ছাত্র ভর্তি প্রক্রিয়া। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত