প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অনাস্থা দেওয়া ৪৬ নেতা অছাত্র বিবাহিত— দাবি চট্টগ্রাম নগর সভাপতি ইমুর ছাত্রলীগের থানা কমিটি নিয়ে বিবাদ

চট্টগ্রাম প্রতিদিন প্রতিবেদন : চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগের দুই থানা কমিটি নিয়ে চলমান বিতর্কের বিষয়ে মুখ খুলেছেন নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু। নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে অনাস্থা দেওয়া ৪৬ নেতাকে অছাত্র, বিবাহিত ও ইনঅ্যাকটিভ উল্লেখ করে উল্টো সেই ৪৬ নেতাকে পদত্যাগের আহবান জানিয়েছেন তিনি।

রোববার (৯ ফেব্রুয়ারি) চট্টগ্রাম প্রতিদিনের সঙ্গে কথোপকথনে তিনি বলেন, ‘সংগঠনকে গতিশীল রাখার স্বার্থে ইউনিট কমিটিগুলো দেওয়া হচ্ছে। সংগঠনের কোথাও উল্লেখ করা নেই কারও সাথে বসতে হবে। তাছাড়া ২৯১ জনের সাথে জনে জনে বসাও সম্ভব না।’

এ সময় দুই থানা কমিটির বিরোধিতাকারীদের ‘অসাংগঠনিক’ দাবি করে তিনি বলেন, ‘যারা বিরোধিতা করছে তারা বেশিরভাগই অছাত্র। ব্যবসা বাণিজ্য, বউ বাচ্চা নিয়ে ব্যস্ত থাকে। সংগঠনে সময় দেয় না। মিটিং মিছিলে আসে না। কমিটি করার সময় আসে ভাগ চাইতে। ২৯১ জনের কয়জনকে ভাগ দেবো?’ বিবৃতি দেওয়া ৪৬ জনের মধ্যে কতজন বিবাহিত বা অছাত্র— এই প্রশ্নের জবাবে ইমু বলেন, ‘২০-২২ জনের বিয়ের তো দাওয়াতেও গেছি।’ তবে এই ২০-২২ জনের নাম বলেননি ইমু।

অনাস্থা দেওয়া ৪৬ জনের তালিকা নিয়েও এ সময় কথা বলেন ইমু। চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে তিনি বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে অনাস্থা দেয়ার যে বিবৃতি দেয়া হয়েছে তার ২০-২২ জন এখন পর্যন্ত আমাদের সাথে যোগাযোগ করে জানিয়েছে তাদের না জানিয়ে তাদের নাম বসিয়ে বিবৃতি দিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমরা এসবে ভীত নই। আগামী ৮ থেকে ১০ দিনের মধ্যে আরও বেশ কিছু ইউনিট কমিটি আমরা ঘোষণা করবো।’

তবে নগর সভাপতির এসব বক্তব্যকে দায়সারা বলছেন নগর ছাত্রলীগের সহ সভাপতি তালেব আলী। তিনি বলেন, ‘নগর ছাত্রলীগের সভাপতি নিজেই তো বিবাহিত। আর আমরা সবাই যদি ইনঅ্যাকটিভ হই তাহলে কি উনারা বলতে চান নগর ছাত্রলীগে শুধু উনারা দুজন সক্রিয়? আমাদের মিটিং মিছিলের ছবি দেখলে বুঝবেন। নগরের সব সহ সভাপতি, জয়েন্ট সেক্রেটারি, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য ও অন্যান্য নেতারা নেতাকর্মী এনে কর্মসূচি সফল করে। তখন সবাইকে দরকার হয়। আর কমিটি দেয়ার সময় মাই ম্যান দিয়ে কমিটি হবে এটা তো হতে পারে না অস্ত্র হাতে পত্রপত্রিকায় দেখা গেছে, বিএনপি নেতার ভাই, হত্যা মামলার আসামিদেরকে তারা নেতা বানায়।’

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত