প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে পাহাড় কাটার দায়ে ১০ কোটি টাকা জরিমানা

নিউজ ডেস্ক : পাহাড় কেটে জীববৈচিত্র্য ধ্বংস, পাহাড়ের উপরিভাগের মাটি এবং ভূমির বাইন্ডি ক্যাপাসিটি নষ্টসহ পরিবেশ-প্রতিবেশের অপূরণীয় ক্ষতি সাধন করায় জরিমানা করা হয় বলে অধিদপ্তরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। একুশে টিভি

বুধবার (২৯ জানুয়ারি) ঢাকায় পরিবেশ অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে শুনানি শেষে ১০ কোটি ৩৮ লাখ ২৯ হাজার ৫৫৩ টাকা জরিমানা নির্ধারণ করেন। মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট বিভাগের পরিচালক রুবিনা ফেরদৌসী।

ঢাকা ট্রাংক রোড থেকে বায়েজিদ বোস্তামী পর্যন্ত লিংক রোড করছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। প্রকল্পটি প্রায় শেষ পর্যায়ে। এজন্য পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে প্রয়োজনীয় অনুমোদনও নেয়া হয়েছিলো।

গত ২৫ জানুয়ারি পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. এ কে এম রফিকুল ইসলাম প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করে অনুমোদনের বাইরে পাহাড় কাটার প্রমাণ পান। ঐ দিন তিনি চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে ঢাকায় শুনানিতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন।

অধিপ্তরের চট্টগ্রাম মহানগরের পরিচালক আজাদুর রহমান মল্লিক বলেন, ‘রাস্তা নির্মাণের জন অনুমোদনের বাইরে বেশি পাহাড় কাটার প্রমাণ পাওয়ায় তাদেরকে ঢাকায় ডাকা হয়েছিল। সেই তলবের ভিত্তিতে বুধবার (২৯ জানুয়ারি) শুনানি শেষে জরিমানার আদেশ দেয়া হয়।

রুবিনা ফেরদৌসী জানান, প্রকল্প প্রস্তাবনায় যত ঘনফুট পাহাড় কাটার অনুমোদন তারা নিয়েছিল বাস্তবে তার থেকে ৬৯ হাজার ২১৯ দশমিক ৭০২ বর্গফুট বেশি কেটেছে। যে এঙ্গেলে কাটার কথা ছিলো সেভাবে না কেটে ৯০ ডিগ্রি এঙ্গেলে খাড়াভাবে কেটেছে। ফলে যে কোনো মুহূর্তে পাহাড় ধসে মানুষের জীবনহানি ঘটতে পারে।

২০১৭ সাল থেকেই তাদেরকে সতর্ক করা হচ্ছিলো। আগেও তাদেরকে সতর্ক করে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ ধার্য করা হয়েছিল। তারপরে তারা থামেনি। এখন প্রকল্প প্রায় শেষের দিকে।

লিংক রোড প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রকৌশলী রাজীব দাস বলেন, প্রকল্পের কাজ এখনো শেষ হয়নি। আমরা পরিবেশ অধিদপ্তরের শর্ত প্রতিপালন করব। তবে শুনানিতে একচেটিয়াভাবে আমাদেরকে জরিমানা করা হয়েছে। আমরা এর বিরুদ্ধে আপিল করবো। অনুলিখন : জেবা আফরোজ

সর্বাধিক পঠিত