প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পুঁজিতন্ত্র কীভাবে দুনিয়াকে ‘উন্নত’ করে চলেছে তার বড় নজির হলো মাস্ক ইন্ডাস্ট্রির উত্থান

আলতাফ পারভেজ : পুঁজিতন্ত্র কীভাবে দুনিয়াকে ‘উন্নত’ করে চলেছে তার বড় নজির হলো মাস্ক ইন্ড্রাস্টির উত্থান। ‘উন্নত’ দুনিয়ার মানুষদের নাকে-মুখে ‘মাস্ক’ না পরে আর থাকা চলছে না। আরও সরাসরি বললে, মাস্কই ‘উন্নয়নে’র একটা বড় প্রতীক হয়ে গেলো শেষ পর্যন্ত। খোদ বিয়ের কেনাকাটাতেও মাস্ক অপরিহার্য হয়ে পড়ছে। ২০১৮ সালেই বৈশ্বিক মাস্ক ইন্ডাস্ট্রি বড় এক ব্যবসা ক্ষেত্র হয়েছিলো। ২০১৯-এর শুরু থেকে এটা এতো জোর কদমে বাড়ছে যে, যোগান দিয়ে কুলানো যাচ্ছে না।

ইন্টারেস্টিং দিক হলো যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ভারত, কোরিয়াসহ ‘উন্নত’ দেশগুলোতেই এর চাহিদা বাড়ছে বেশি করে। ফলে পণ্যের ভালো দামও মিলছে। কেবল চীনে এখন দিনে ২০ কোটি মাস্ক দরকার। অস্ট্রেলিয়ায় এ সপ্তাহে এটার ঘাটতি পড়েছে। তাইওয়ান ইতোমধ্যে কয়েক মাসের জন্য মাস্ক বিদেশে পাঠানো বন্ধ ঘোষণা করেছে। ম্যাকাওতে পাগলপ্রায় ক্রেতাদের মাস্ক ক্রয় কমাতে পরিচয়পত্র দেখতে চাওয়া হচ্ছে। জাপানে মাস্ক উৎপাদক সবচেয়ে বড় কোম্পানিটি ১৭ জানুয়ারি থেকে সব কর্মীর ছুটি বাতিল করেছে। আলীবাবা’র ‘টাওবাও’ দুদিনে আট কোটি মাস্ক বিক্রি করেছে।

বাংলাদেশে যারা ব্যবসার পথ খুঁজছেনÑ তাদের জন্য নিচের গ্রাফটি দেয়া হলো। আগামী ৫ বছর কীভাবে মাস্কের চাহিদা বাড়বে এটা কেবল তার এক আইটেমের দুর্বল অনুমান মাত্র। চীনের ভাইরাস মহামারীর আগের গ্রাফ এটা। এখন সম্ভাব্য গ্রাফটি কী আকার নেবে তা অনুমান করাও কঠিন। নিশ্চিত থাকুন, পুঁজিতন্ত্র কবর পর্যন্ত প্রত্যেক মানুষের কাছ থেকে ব্যবসা করে যাবে। ‘উন্নয়নে’র জয় হোক। ‘ব্যবসাবান্ধব পরিবেশে’র জয় হোক। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত