প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কালের বিবর্তনে মাইক সরবরাহকারী অনেক প্রতিষ্ঠানই হারিয়ে গেছে

 

মির্জা ইয়াহিয়া : ঢাকা সিটি নির্বাচনের প্রচারণায় মাইকের ব্যবহার দেখা যাচ্ছে। রিকশার পেছন দিকে হর্ন বসিয়ে রেকর্ডকৃত গান, স্লোগান বাজছে। ভোটারদের কাছে মেয়র ও কাউন্সিলরদের কাছে ভোট দেয়ার অনুরোধ করা হচ্ছে।

সিটি নির্বাচনে মাইকের ব্যবহার এই প্রচার যন্ত্রটির কথা মনে করিয়ে দিলো। কারণ ব্যবহার কমে যাওয়ায় মাইকের কথা অনেকটা ভুলে গিয়েছিলাম। সত্তর-আশির দশকের কথা মনে পড়ে। তখন বিনোদনে মাইকের জনপ্রিয়তা ছিলো তুঙ্গে। বিয়ে-শাদীর মতো আয়োজনে মাইকে বাংলা ও হিন্দি জনপ্রিয় গান বাজানো হতো। আর আলাদা করে বিয়ের কিছু গানতো বাজতোই। সেই সময় মাইক ভাড়া দেয়ার ব্যবসা চাঙা ছিলো। মনে পড়ে, ছোটবেলায় বাসায় কোনো অনুষ্ঠান না থাকলেও শুধু গান বাজানোর জন্য আমরা মাইক ভাড়া করে আনতাম। চালিয়ে দিতাম সেই সময় পপগানের চার শিল্পী ফিরোজ সাঁই, ফকির আলমগীর, ফেরদৌস ওয়াহিদ ও আজম খানের গান। রেকর্ডের সেই গান এক মাইল দূর থেকেও শোনা যেতো। ভাবতেই অবাক লাগে, প্রতিবেশীরা এতো জোরে গান চালানোর বিষয়টি নিয়ে কোনো অভিযোগ করতো না। এখন তো বিষয়টি কল্পনাও করা যায় না। তখন আসলে শব্দদূষণের ব্যাপারটি নিয়ে মানুষ অতো ভাবতোও না।

মাইকের কথায় ফিরে আসি। এখন নতুন প্রযুক্তির সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে গান শুনতে হয়। মোবাইলেও গান শোনা যায়, দেখা যায়। তাই মাইকের ব্যবসা আগের মতো নেই। শুধু নির্বাচনের মৌসুমে এর চাহিদা থাকে। শীতকালে ওয়াজ মাহফিলে মাইকের ব্যবহার দেখা যায়। সারাবছর রাজনৈতিক জনসভায় কিছু মাইক ভাড়া হয়। এক্ষেত্রে ঢাকার বিখ্যাত মাইক সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান কলরেডী। তারা মোটামুটিভাবে টিকে আছে। কালের বিবর্তনে মাইক সরবরাহকারী অনেক প্রতিষ্ঠানই হারিয়ে গিয়েছে। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত