প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শিশুর হাতে ডিজিটাল ডিভাইস নয় প্রকৃতির মাঝেই বড় হোক সারাক্ষণ স্ক্রিনে তাকিয়ে থাকায় দৃষ্টিশক্তির ক্ষতি হতে পারে !

শাহীন খন্দকার : স্মার্টফোন প্রস্তুতকারী সংস্থা ভিভো ও সাইবারমিডিয়ার এক যৌথ জরিপের প্রকাশিত ফলাফল থেকে জানা যায়, এই সমীক্ষায় অংশ নেওয়া দুই হাজার সদস্যদের অর্ধেকের বেশি সোশ্যাল মিডিয়া বন্ধ করতে অস্বীকার করেছেন। অনেকেই মনে করেন স্মার্টফোন ছাড়া জীবন ধারণ সম্ভব নয়।

বেশিরভাগ শিশুর হাতে ফোন এসে যাচ্ছে স্কুল বয়সেই। এতে করে তারা স্মার্টফোনের ওপর নির্ভরশীল হয়ে যাচ্ছে। যোগাযোগ বা কোনো কিছু জানার আগ্রণ হলে সে ফোনেই সব করে নিচ্ছে। এতে করে শিশুর দূরত্ব বাড়ছে পরিবার ও প্রকৃতির সঙ্গে। যার প্রভাব তার পুরো জীবনে পড়বে বলেই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, ইন্টারনেটের যুগের শিশুরা ডিজিটাল ডিভাইস হাতে বড় হচ্ছে। এর ফলে সমাজের কাঠামো পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। সম্পর্কের মধ্যে ফাটল দেখা যাচ্ছে। বদলে যাচ্ছে মানুষের আবেগ প্রকাশের উপায়। বেশিরভাগ স্মার্টফোন ব্যবহারকারী শিশু-কিশোরই বন্ধু ও পরিজনদের সঙ্গে ভার্চুয়ালি কথা বলতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।

চক্ষু বিজ্ঞান ইনষ্টিটিউটেট হাসপাতালের কর্নিয়া বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. আব্দুল কাদের বলেন, জেগে থাকা সময়ের এক-তৃতীয়াংশই স্মার্টফোন ব্যবহার করছি আমরা। সম্প্রতি এক সমীক্ষায় দেখা গেছে শুধুমাত্র স্মার্টফোনের দিকে তাকিয়ে থেকেই বছরের মোট ৭৫ দিন কেটে যাচ্ছে। বড়রাই নয়, এই অবস্থা থেকে মুক্ত নয় শিশুরাও।

এই শিশুরা বাইরে বন্ধুদের সঙ্গে খেলতেও পছন্দ করে না। ফলে তাদের মধ্যে ওবেসিটি বা অতিরিক্ত ওজন বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকিও বাড়তে থাকে। সারাক্ষণ স্ক্রিনে তাকিয়ে থাকায় দৃষ্টিশক্তিরও ক্ষতি হতে পারে। এছাড়াও তাদের মনোযোগ ও ধৈর্য কম থাকে।

স্মার্টফোন আমাদের জীবনে যোগাযোগের জন্য প্রয়োজনীয় হলেও এর ব্যবহারে এখন থেকেই ইতি টানতে হবে। বিশেষ করে ছোটদের সামনে। কারণ পরিবারের বড়রা যদি সারাক্ষণ ফোন হাতে থাকেন, তবে স্মার্টফোন থেকে দূরে থাকার পরামর্শ শিশুরা কেন শুনবে?

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত