প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এনআরসি নিয়ে চুপ করে থাকার সময় এটা নয়, বললেন অভিনেত্রী নন্দিতা দাস

রাশিদ রিয়াজ : ২০১৮ সালে প্রখ্যাত সাহিত্যিক সাদাত হোসেন মান্টোকে নিয়েই একটি কাহিনিচিত্র পরিচালনা করেছিলেন নন্দিতা। সাদাত হাসান মান্টোর জন্ম ভারতে হলেও, দেশভাগের পর তিনি পাকিস্তান চলে যান। মাত্র তেতাল্লিশ বছরের জীবনে এই প্রগতিশীল সাহিত্যিক তিনশোরও বেশি গল্প এবং একশোর মতো প্রবন্ধ লেখেন।

বিশিষ্ট লেখক সাদাত হাসান মান্টো আজ বেঁচে থাকলে বলতেন, ‘ধর্মের ভিত্তিতে এক বার দেশভাগ হয়েছে। সেই ইতিহাস থেকে কি তোমরা কিছুই শেখোনি?’ শুক্রবার ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে টাটা স্টিল কলকাতা লিটেরারি মিটের এক অধিবেশনে এ কথা বলেন বিশিষ্ট অভিনেত্রী ও চিত্র পরিচালক নন্দিতা দাস।

বিশিষ্ট চিত্রনাট্যকার নিরঞ্জন আয়েঙ্গারের সঙ্গে আলাপচারিতায় নন্দিতা বলেন, ‘দেশভাগের পর পাকিস্তান ইসলামিক রাষ্ট্র হিসাবেই আত্মপ্রকাশ করে। অন্য দিকে, প্রথম থেকেই ভারতকে সবাই একটি ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক দেশ হিসাবে জেনেছে। সেখানে সবার সমান অধিকার।’

আক্ষেপের সঙ্গে নন্দিতা আরও বলেন, ‘যেখানে অর্থনীতি বেহাল, অপুষ্টি আর বেকারির হার বেড়েই চলেছে, সেখানে অগ্রাধিকার না দিয়ে শুধু নাগরিকতার প্রমাণ দিতে একগাদা ফর্ম ভরার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।’

ভারত জুড়ে যে সিএএ, এনআরসি, এনপিআর-বিরোধী আন্দোলন চলছে, তাকে সমর্থন করে নন্দিতা বলেন, ‘চারদিকে একটা ভয়ের আবহ তৈরি হয়েছে। ধর্ম, লিঙ্গ, জাতির ভিত্তিতে বৈষম্য করা হচ্ছে। কিন্তু এখন চুপ করে থাকার সময় নয়। বরং খোলা মনে প্রত্যেকটি বিষয় বিবেচনা করুন এবং পরস্পরের প্রতি বিশ্বাস জাগিয়ে তুলুন। বিশ্বাসে দৃঢ় থাকলে, সাহস আসবে স্বাভাবিক ভাবেই। একেই আমি মান্টোইয়াৎ বলি।’

উপস্থিত দর্শকদের কাছে নন্দিতার আবেদন, ‘দয়া করে ইতিহাসের সঙ্গে পৌরাণিক কাহিনি গুলিয়ে ফেলবেন না। দু’টো কখনও এক নয়। সম্প্রতি বলিউড থেকে মুক্তি পাওয়া বেশ কিছু প্রোপাগান্ডা ছবি দেখে সাধারণ মানুষ ভাবছে এটাই ইতিহাস। এটা খুবই দুঃখের।’

অনুষ্ঠানের শুরুতে নন্দিতার লেখা ‘মান্টো অ্যান্ড আই’ বইটির আনুষ্ঠানিক প্রকাশ করেন বিশিষ্ট সাহিত্যিক এবং জ্ঞানপীঠ পুরস্কার বিজেতা অমিতাভ ঘোষ। এই সময়

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত