প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

হজ যাত্রার বিমান ইজারায় অনিয়মের অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠন, প্রমাণ পেলে কঠোর শাস্তির হুঁশিয়ারি প্রতিমন্ত্রীর

লাইজুল ইসলাম : আগামী তিন বছর হজের তিন মাসের জন্য যাত্রী পরিবহনে গত বছরের ২৪ সেপ্টেম্বরে দরপত্র আহ্বান করে বিমান। যাতে শর্ত ছিলো ২০ বছরের পুরোনো এয়াক্রাফটও ব্যবহার করা যাবে। তবে ২০ অক্টোবর ঐ শর্তে পরিবর্তন এনে ১২ বছর করা হয়। নতুন শর্তের কারণে দরপত্র থেকে বাদ পড়ে যায় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠান।

এরপরই ইজারা থেকে বাদ পরা বিদেশি একটি এয়ারলাইন্স প্রতিষ্ঠান হজ যাত্রায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ইজারা প্রক্রিয়ায় অনিয়ম হয়েছে বলে মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ করে। তারা বলছে, দরপত্রের শর্ত না মানলেও ফ্রান্সের এভিকো চার্টার্ড কোম্পানিকে প্রাথমিকভাবে বাছাই করেছে বিমান কর্তৃপক্ষ।

অভিযোগে বলা হয়, নির্দিষ্ট একটি সংস্থাকে সুবিধা দিতেই শেষ মুহূর্তে দরপত্রে শর্ত পরিবর্তন করা হয়েছে। দরপত্রের প্রথমে শুধুমাত্র ২০২০ সালের জন্য লিজ নেয়ার কথা বলা হলেও পরবর্তীতে তা পরিবর্তন করে তিন বছর করা হয়। প্রথম প্রকাশিত দরপত্রে ২০২১ ও ২০২২ সালের জন্য কোনও দরের কথা উল্লেখ করা হয়নি।

এরপরই তদন্ত কমিটি গঠন করে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ। ৬ জানুয়ারি তিন সদস্যের একটি কমিটি করে মন্ত্রণালয়। কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেনকে। এছাড়াও কমিটিতে আছেন বিমানের পরিচালক (পরিকল্পনা) মো.মাহবুব জাহান খান ও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের একজন প্রতিনিধি। এ কমিটিকে ১২ জানুয়ারির মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়। যদিও পরবর্তীতে সময় বাড়ানোর আবেদন করে কমিটি।

বিমান প্রতিমন্ত্রী জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিমানের ইজারায় অস্বচ্ছতা থাকলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিমানকে স্বচ্ছ করার জন্য এতদিন কাজ করে যাচ্ছে মন্ত্রণালয়। অবশ্যই দোষি হলে কঠোর শাস্তির হুশিয়ারি দেন তিনি।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোকাব্বির হোসেন বলেন, সরকারি লিজ নীতিমাল অনুসরণ করা হয়েছে। ২০ বছরের স্থানে ১২ বছরের বিমান ভাড়া করার সিদ্ধান্ত বিমান বোর্ডের। যারা না মানবে তারা তো বাদ পরবেই।

তিনি বলেন, বেশি পুরাতন বিমান ভাড়া নিয়ে আসলেই ত্রুটি দেখা দেয়। এতে ভোগান্তিতে পরে হজ যাত্রীরা। এজন্যই এই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। কোনও অনিয়ম করার সুযোগ নেই। তারপরও মন্ত্রণালয় তদন্ত কমিটি করেছে, এতে বিষয়টি আরও পরিষ্কার হবে।

বাড়তি যাত্রীর চাপ সামাল দিতে প্রতি বছর হজ মৌসুমে উড়োজাহাজ ইজারা নেয় বিমান বাংলাদেশ এয়ালাইন্স। তবে গত কয়েক বছর ধরে যেসব এয়ারলাইন্সের সাথে এ বিষয়ে চুক্তি করে রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি তাদের বেশ কয়েকটির সেবার মান নিয়ে বিভিন্ন সময়ে অভিযোগ করেছেন হজ যাত্রীরা।

এবছর হজযাত্রা শুরুর আগে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স উড়োজাহাজের ইজারা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে না পারলে ভোগান্তিতে পড়বেন যাত্রীরা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত