প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কি কারণে বাড়ছে সীমান্ত হত্যা?

ডেস্ক নিউজ: ২০২০ সালের বছরের প্রথম ২৪ দিনে ২০১৮ সালের পুরো বছরের সীমান্ত হত্যার রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, সম্প্রতি ভারতে অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক উত্তেজনার কারণেই বেড়েছে সীমান্ত হত্যা। সূত্র:সময়টিভি

২০১১ সালে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে ফেলানী খাতুন হত্যার নির্মম ঘটনা বিশ্বব্যাপী সাড়া ফেলে। এর বছর ছয়েক পরে ২০১৮ সালে দিল্লীতে অনুষ্ঠিত সীমান্ত সমেলনে প্রাণঘাতী অস্ত্র ব্যবহার না করার প্রতিশ্রুতি দেয় ভারত। সে বছর সীমান্তে হত্যা উল্লেখযোগ্য হারে কমে ১৪ জনে নেমে আসে যা গত এক দশকের মধ্যে সব চেয়ে কম।

পরিসংখ্যান বলছে, গত দশ বছরে বাংলাদেশ ভারত সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর গুলিতে নিহত হয়েছে ৩৪৩ জন বাংলাদেশী নাগরিক। তবে আশ্বাসের বাণী শোনালেও এখন পর্যন্ত এর কোনটির বিচার হয়নি। এরিমধ্যে বছরের শুরুতে যোগ হয়েছে নতুন উদ্বেগ। গত ২৪ দিনেই ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ১৫ জন বাংলাদেশী। যেখানে ২০১৮ সালের পুরো বছর জুড়ে নিহত হয়েছিল ১৪ জন।

প্রশ্ন উঠেছে কেন বাড়ছে সীমান্ত হত্যা?

সাবেক পররাষ্ট্র সচিব ও রাষ্ট্রদূত হুমায়ূন কবির বলেন, ভারতে অভ্যন্তরে কিন্তু আমরা অনেকদিন ধরেই ধর্মভিত্তিক একটা রাজনীতি বিকাশ দেখা যাচ্ছে। আন্দাজ করা যায়, এর কারণে সীমান্ত রক্ষাকারীদের ওপর প্রভাব পড়তে পারে।

মানবাধিকারকর্মী নূর খান লিটন বলেন, ভারত সবসময় বড় ভাইয়ের মত ব্যবহার করছে। তারা শুধু নিচ্ছেই, দিচ্ছে না কিছুই। সম্পাদনা: জেরিন

দুই দেশের সীমান্তরক্ষা বাহিনীর শীর্ষ পর্যায়ে বৈঠকে বার বার দেয়া প্রতিশ্রুতিকে রাজনৈতিক সদিচ্ছা হিসেবেই দেখতে চান বিশ্লেষকরা। তবে তা বাস্তবায়নে দু’দেশের রাজনৈতিক নেতৃত্বকেই এগিয়ে আসতে হবে বলেও মত তাদের।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত