প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ধর্ষণের মামলা মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় বাদীর তিন বছরের কারাদণ্ড

সিরাজুল ইসলাম : বৃহস্পতিবার দুপুরে পঞ্চগড় চিফ জুডিশিয়াল আদালতের হাকিম মিনহাজুর রহমান এই দণ্ডাদেশ দেন।
দণ্ডিত ব্যক্তির নাম কেরামত আলী (৪৫)। তিনি দেবীগঞ্জ উপজেলার টেপ্রিগঞ্জ ইউনিয়নের রামগঞ্জ বিলাসী হাজারীপাড়া এলাকার লস্কর মুন্সির ছেলে। রায় ঘোষণার সময় তিনি আদালতে ছিলেন না।

জানা যায়, ২০১৬ সালের ৯ মার্চ কেরামত আলী পাশের গ্রাম প্রধানপাড়ার তার আপন ভায়রা মোশারফ হোসেনের (৪২) নামে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

কেরামত অভিযোগ করেন তার পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়েকে মোশাররফ ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করেন। ২০১৭ সালের ১১ জুলাই অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতে মেয়েটি জবানবন্দিতে বলে, তার খালু মোশাররফ হোসেন তার কোনও ক্ষতি করেনি। তার বাবা ও খালুর মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কারণে মামলাটি হয়েছে।

স্বীকারোক্তি গ্রহণ করে ওই দিনই অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত বাদীর বিরুদ্ধে ২১১ ধারায় মামলা করে ব্যবস্থা নিতে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতকে নির্দেশ দেন। দীর্ঘ বিচারিক প্রক্রিয়া শেষে বৃহস্পতিবার মিথ্যা মামলা করার অভিযোগে কেরামত আলীকে ৩ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত।

এই মামলায় বাদী পক্ষে ছিলেন সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর মোস্তাফিজুর রহমান। আর আসামিপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মির্জা সারওয়ার হোসেন। সূত্র: বাংলানিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত