প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সার্কের দেশগুলো কে কবে ই পাসপোর্ট শুরু করেছে?

লাইজুল ইসলাম : গতকাল থেকে বাংলাদেশে ই পাসপোর্ট কার্যক্রম শুরু হলো। এই পথে বিশ্বের ১১৯তম দেশ বাংলাদেশ। সার্কভূক্ত দেশ বাংলাদেশ, আফগানিস্তান, ভূটান, মালদ্বীপ, নেপাল, পাকিস্তান, ভারত ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে বেশিরভাগ দেশেই বায়োমেট্রিক (ই-পাসপোর্ট) পাসপোর্ট চালু রয়েছে।
০১. বাংলাদেশ
বাংলাদেশ সার্কভূক্ত দেশগুলোর মধ্যে পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে। এরআগে আফগানিস্তান, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপে বায়োমেট্রিক পাসপোর্ট চালু হয়। ই-পাসপোর্ট মূলত ৪৮ ও ৬৪ পাতার। বাংলাদেশের ই পাসপোর্ট তিন ধরনের হয়- ‘অতি জরুরি’, ‘জরুরি’ ও ‘সাধারণ’।
০২ পাকিস্তান
২০০৪ সালে পাকিস্তান প্রথম বায়োমেট্রিক পাসপোর্ট চালু করে। কিন্তু এটি ইন্টারন্যাশনাল সিভিল অ্যাভিয়েশন অর্গানাইজেশনের (আইসিএও) নীতিমালার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ না হওয়ায় ২০১২ সালে আইসিএও-এর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ বহুমাত্রিক বায়োমেট্রিক ই-পাসপোর্ট চালু করে।
০৩. আফগানিস্তান
আফগানিস্তানে ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে দুই ধরনের ই-পাসপোর্ট ইস্যু করা হয়। একটি আফগান কূটনীতিকদের অপরটি সরকারি কর্মকর্তাদের। ২০১৩ সালের মার্চে জনসাধারণের জন্য ই-পাসপোর্ট চালু হয়।
ভুটান

সার্কভুক্ত দেশ ভুটানে এখনও ই-পাসপোর্ট চালু হয়নি। কবে নাগাদ দেশটিতে এ ধরনের পাসপোর্ট চালু হতে পারে সে বিষয়েও তেমন কোনো তথ্য জানা যায়নি।
ভারত
ভারতে এখনও ই-পাসপোর্ট চালু হয়নি। কবে নাগাদ দেশটিতে এ ধরনের পাসপোর্ট চালু হতে পারে সে বিষয়েও তেমন কোনো তথ্য জানা যায়নি।
মালদ্বীপ
মালদ্বীপে ২০১৬ সালের ২৫ জানুয়ারি ই-পাসপোর্ট চালু হয়। বিশ্বের অন্যতম সুরক্ষিত বায়োমেট্রিক পাসপোর্টের মধ্যে এটি অন্যতম। সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে আধুনিক ও বাস্তবধর্মী বায়োমেট্রিক পাসপোর্ট হচ্ছে মালদ্বীপের।
নেপাল
২০১০ সালের পর থেকে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট চালু রয়েছে। ২০১০ সালের ৩১ মার্চ তারা হাতে লেখা পাসপোর্ট ইস্যু বন্ধ করে দেয়। গত এক বছর ধরে নেপাল ই-পাসপোর্টের বিষয়ে কাজ করছে। তবে এখনও দেশটি ই-পাসপোর্ট চালু করতে পারেনি।

শ্রীলঙ্কা

আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী ২০১৫ সালের ১০ আগস্ট থেকে বায়োমেট্রিক পাসপোর্ট ইস্যু করছে শ্রীলঙ্কা। দেশটিতে বেশ কয়েক ধরনের পাসপোর্ট চালু রয়েছে। যেমন- কূটনৈতিক, দাফতরিক, সাধারণ, জরুরি, নন-মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট। সম্পাদনা : তন্নীমা আক্তার

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত