প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সামুদ্রিক মাছ খেয়ে আচমকা বুড়ি হয়ে গেলেন ২৬ বছর বয়সী বধূ

ইয়াসিন আরাফাত : ভিয়েতনামের ২৬ বছর বয়সী সেই গৃহবধূর নাম থি ফুয়ং। তাকে সারিয়ে তুলতে স্বামী নিজের সব সম্পদ ব্যয় করলেও শেষ পর্যন্ত সুস্থ করে তুলতে পারেননি। তবে সবকিছু মেনে নিয়ে সুখেই দিন কাটাচ্ছেন তারা। ভিয়েতনাম নেট ব্রীজ

জানা যায়, প্রায় ৩ বছর আগে স্বামী খুব সখ করে ঘরে এনেছিলেন এক অজানা সামুদ্রিক মাছ। বেশ আগ্রহ নিয়েই থি রান্না করেছিলেন সেই মাছ। কিন্তু সেই মাছ খাওয়ার পর বদলে যায় থির চেহারা।

প্রথমে তার শরীরে অ্যালার্জি দেখা দেয়। পুরো শরীর চুলকাতে থাকে। সহ্য করতে না পেরে ওই দিন সকালেই ডাক্তারের কাছে যান। কিছু অ্যালার্জির ওষুধ নিয়ে ফিরে আসেন। এসে বিছানায় ঘুমিয়ে পড়েন। কিছুক্ষণ পর তার চামড়া কুঁচকে বুড়োদের মতো হয়ে যায়। প্রথমে তিনি ঘাবড়ে যান। কিন্তুকণ্ঠ শুনে বুঝতে পারেন এই মহিলাই তার স্ত্রী। এই অবস্থা দূর করতে বহু ডাক্তারের কাছে যান ওই দম্পতি। কিন্তু তাতে কোনো কাজ না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত তারা চীনে যান ডাক্তার দেখাতে।

চীনের ডাক্তার জানান, তারা যে মাছ খেয়েছিলেন তাতে এক ধরণের বিষ ছিল। সেই বিষে আক্রান্ত হন স্ত্রী। এই রোগের জন্য যে ওষুধ খেতে হবে তা অনেক দামী। শেষ পর্যন্ত স্বামী তার প্রায় সব সম্পদ বিক্রি করে স্ত্রীর জন্য সেই ওষুধ কেনেন। কিন্তু তাতেও কোনো উন্নতি হয়নি।
ওই দম্পতি এখন প্রায় নিঃস্ব। তবে তাতে তাদের দুঃখ নেই। স্বামীর মন্তব্য, স্ত্রী বেঁচে আছে এবং আমার আছে সেটিই এখন বড়। আর স্ত্রীর সন্তুষ্টি, এই অবস্থা স্বামী তাকে ভালোবাসে সেটিই বড়। সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব

সর্বাধিক পঠিত