প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দাম বেড়েছে তেল-ডালের, কমেছে পেঁয়াজের, সবজির বাজার স্বাভাবিক

লাইজুল ইসলাম : শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, নিউমার্কেট কাচা বাজার ও পলাশী বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে। পাইকারী বাজারে শীতকালীন সবজির দাম কমার কারণে খুচরা বাজারেও এর প্রভাব পরেছে।

এসব বাজারে সব ধরনের সবজির কম দামে বিক্রি হয়েছে। প্রতিকেজি শিম (কালো) ৩০-৩৫ টাকা, শিম (সাদা) ২০-২৫ টাকা, বেগুন ৩০-৪০ টাকা, নতুন আলু ২৫-৩০ টাকা, পুরনো আলু ৩০-৩৫ টাকা, পটল ২০-৩০ টাকা, ঝিঙা ২০-৩০, করলা ৩০-৪০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৩৫-৪৫ টাকা, টমেটো ৩০-৪০ টাকা, টমেটো (আধা কাঁচা) ২৫-৩৫ টাকা, গাজর ৩০-৪০ টাকা, শসা ৩০-৪০ টাকা, ক্ষিরা ২৫-৩৫ টাকা, পেঁপে ১৫-২০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

আকারভেদে প্রতিপিস বাঁধাকপি ও ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকা, লাউ ২০ থেকে ৪০ টাকায়। প্রতি আটি কচুশাক চার থেকে ৬ টাকা, লালশাক ৬ টাকা, মুলা ৫ টাকা, পালংশাক ৮-১০ টাকা, লাউশাক ১০-১৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

ভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে অস্বাভাবিক হারে। খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ৯৫ ও ৯০ টাকা করে। বোতলজাত তেলের কেজিপ্রতি দাম বেড়েছে ২০ টাকা করে।

বিভিন্ন মসলার দাম কিছুটা বাড়তির দিকে। তবে বেশি দাম বেড়েছে এলাচের। বাজারে ভালো মানের এলাচ এখন বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৫৫০০টাকায়। দেশি পেঁয়াজ কেজিতে বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকা কেজিতে।মিশরের পেঁয়াজ ৭০ টাকা, চায়না পেঁয়াজ ৬৪ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।

কামাল নামের কারওয়ান বাজারের পাইকার ব্যবাসয়ী বলছেন, পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমতে শুরু করেছে। সানজিদা নামরে এক গৃহীনি বলেন, বাজারে সবধরনের সবজির দাম কম। তবে আরও কম হওয়া উচিত। বর্তমানে কোনো সবজির ঘাটতি না থাকলেও দাম সে তুলনায় কমছে না। শাহবউদ্দিন বেসরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা বলেন, বাজারে তেল, ডাল ও মসলার দাম বেড়েছে। কোনো কিছুতেই যেনো কারো নিয়ন্ত্রণ নেই।

এদিকে, মাছের দামে কোনো হেরফের হয়নি, প্রতিকেজি রুই (আকারভেদে) ২৩০-৩০০ টাকা, মৃগেল ২০০-২৫০ টাকা, পুঁটি ২৫০-৪০০ টাকা, শিং ২৫০-৪৫০ টাকা, চিংড়ি (গলদা) ৫০০-৬০০ টাকা, বাগদা ৫০০-৮০০ টাকা, দেশি চিংড়ি ৩০০-৪০০ টাকা কেজিদরে বিক্রি হয়েছে।

অন্যদিকে অপরিবর্তিত আছে ডিম, চাল, গরু-খাসি ও মুরগির মাংসে বাজার।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত